বুধবার   ২২ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ৮ ১৪২৬   ২৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

দৈনিক জামালপুর
৩৫

এই শীতে ঘুরে আসতে পারেন মেঘরাজ্য নীলগিরি

প্রকাশিত: ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯  

শীতকালে কার না ঘুরতে মন চাই না! শীতকালে প্রকৃতিটাও আসে খুন সুন্দরি হয়ে। তাইতো শীতের সন্ধ্যায় প্রিয়জনকে নিয়ে সূর্যাস্ত দেখতে অনেকেই ছুটে যান নীলগিরিতে। রিসোর্ট বুকিং করে শিশির ভেজা প্রকৃতির মৃদু সূর্যোদয়ও মিস করেন না অনেকে। 

 

আকাশ ছুঁয়ে দেখার ইচ্ছে পূরণ করার জন্যও অনেকের প্রিয় গন্তব্য এটি। নীলগিরির কাছেই উপজাতি মোরো সম্প্রদায়ের একটি গ্রাম রয়েছে। এখানে গিয়ে তাদের রঙ্গিন সংস্কৃতি এবং জীবনযাত্রা প্রত্যক্ষ করা এক অনন্য অভিজ্ঞতা হতে পারে।

 

অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি পার্বত্য বান্দরবান জেলায় পর্যটনকেন্দ্রটির অবস্থান। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ২২০০ ফুট উঁচু হওয়ার কারণে জায়গাটি সর্বদা মেঘমণ্ডিত থাকে, এটিই পর্যটনকেন্দ্রের বিশেষ আকর্ষণ। একবিংশ শতাব্দীর শুরু থেকে জায়গাটি দেশের মানুষের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

 

নীলগিরি থেকে চারপাশে চোখ মেলে তাকালে সারি সারি মেঘের পাহাড়ে আছড়ে পড়া ও প্রকৃতির অপার সৌন্দর্য বিমোহিত করে। আকাশ পরিস্কার থাকলে চোখে পড়বে বগালেক, দেশের পঞ্চম সর্বোচ্চ পাহাড় চূড়া কেওক্রাডং, কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত, চট্টগ্রাম বন্দর ও সাঙ্গু নদী। এছাড়া সকালে দেখবেন মেঘের ভেলার খেলা, সূর্যোদয়ের আলোর খেলা। বিকেলের সূর্যাস্ত কিংবা জ্যোৎস্না রাতের মায়াময় চারপাশ আপনাকে মুগ্ধ করবেই।

 

নীলগিরিতে থাকার ও খাওয়ার জন্য রয়েছে দুটি কটেজ ও একটি ক্যাফেটেরিয়া। কটেজগুলো জনসাধারণকেও ভাড়া দেয়া হয়। যেহেতু ঘণ্টাচারেকের পথ, আপনি চাইলে বান্দরবান থেকে নীলগিরি দেখে দিনে দিনেই ফিরতে পারেন। তবে ওরকম একটি জায়গায় রাতযাপনের নিশ্চয়ই আলাদা রোমাঞ্চ। রাতে থাকতে হলে ওডোমস (মসকিওটো ক্রিম) নিতে ভুলবেন না।

 

কীভাবে যাবেন

বান্দরবান সদর থেকে নীলগিরির দূরত্ব ৫০ কিলোমিটার। বান্দরবান বাস টার্মিনাল থেকে থানচিগামী বাস অথবা ব্যাক্তিগত গাড়িতে করে নীলগিরি যেতে পারবেন।

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর