শনিবার   ১৬ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ১ ১৪২৬   ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

দৈনিক জামালপুর
১৬৪

কাজিপুরের সংস্কৃতিতে লেগেছে পরিবর্তনের হাওয়া

প্রকাশিত: ৮ এপ্রিল ২০১৯  

সাহিত্য শিল্প সংস্কৃতি ঋদ্ধ সৃজনশীল মানবিক বাংলাদেশের পথে এগিয়ে চলেছে কাজিপুরের সংস্কৃতি। সম্প্রতি যাত্রা শুরু হয়েছে কাজিপুর শিল্পকলা একাডেমির। হাঁটি হাঁটি পা পা করে  ঘুরে দাঁড়াচ্ছে কাজিপুরের সাহিত্য-সাংস্কৃতিক অঙ্গণ।

অবদান রাখছেন  বিশিষ্ট গীতিকার ও সুরকার শেখ শাহ আলম। উনি কাজিপুরের সন্তান। সম্প্রতি বঙ্গমাতা সাংস্কৃতিক জোটের কেন্দ্রিয় কমিটির তিনি সভাপতি মনোনীত হয়েছেন। নিজে বঙ্গবন্ধুর উপর গান লিখেছেন সুর করেছেন।

এবারের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটের গান হিসেবে যে গানগুলো সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় হয়েছে তার মধ্যে তার প্রযোযিত ও সুরারোপিত গান অন্যতম। এরই মধ্যে তিনি চারটি গান রিলিজ করেছেন। গানগুলো ইউটিউব ও ফেসবুকে বেশ খানিকটা জায়গা দখল করে নিয়েছে। দিনের পর দিন হু হু করে বাড়ছে এর ভিউয়ার সংখ্যা।

যমুনার উর্বর পলি আর ফসলের লকলকে ডগার মতোই চির সবুজকে বুকে লালন করে এগিয়ে চলেছে কাজীপুরের সংস্কৃতি। আর সংস্কৃতির অপরিহার্য অংশ সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের ভিন্নমাত্রিক পথচলার সারথী বেশ কটি কালচারাল সংগঠনকে ঘিরে। এসব  সংগঠনের মধ্যে সোনামুখী অনুশীলন একাডেমি, বঙ্গমাতা সাংস্কৃতিক জোট ঢেকুরিয়া বাজার শাখা, যমুনা বাউল একাডেমি, নাপা সঙ্গীত একাডেমি, সোনামুখী নবজাগরণী ক্রীড়া সংঘ, মনপুরা সাংস্কৃতিক ক্লাব, ইসলাম স্পোটিং ক্লাব অন্যতম। বঙ্গমাতা সাংস্কৃতিক সংঘের উপজেলা ও ইউনিয়ন কমিটি ইতোমধ্যে গঠনের পথে রয়েছে।

 এসব সংগঠনকে সামনের পথে নেবার অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী ও সঙ্গীতজ্ঞ অধ্যক্ষ মোজাম্মেল হক বকুল সরকার, নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান সিরাজী,  সিরাজগঞ্জ কালচারাল অফিসার কাজিপুরের সন্তান মাহমুদুল হাসান লালন।

সংস্কৃতির এই ধারাকে বিকশিত করতে এলাকার সব শিল্পীদের বহুমাত্রিক সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে পারদর্শি করে তুলতে নেয়া হয়েছে নানা পরিকল্পনা।

আসছে ১ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দে অনুশীলন একাডেমি ও সোনামুখী নবজাগরণী ক্রীড়াসংঘ নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এই একাডেমির সভাপতি শিল্পী আবদুল জলিল বিটিভির সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষ্যে শিল্পী বাছাই প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে নজরুল সঙ্গীতে সিরাজগঞ্জ জেলায় প্রথম স্থান অর্জন করে রাজশাহী বিভাগীয় প্রতিযোগিতায় তৃতীয় হয়েছেন। শিল্পী আল মামুন খোকন রবীন্দ্র সঙ্গীতে এবং শিল্পী বেলাল হোসেন আধুনিক গানে জেলা পর্যায়ে দ্বিতীয় স্থান লাভ  করে উপজেলার জন্য বিশেষ সম্মান বয়ে নিয়ে এসেছেন। এই প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে পর্যায়ক্রমে গানের পাশাপাশি আবৃত্তি, নৃত্য, যন্ত্রসঙ্গীত বিষয়ে প্রশিক্ষণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।


বঙ্গমাতা সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি শেখ শাহ আলম জানান, কাজিপুরের অতীত ইতিহাস যেমন সমৃদ্ধ, তেমনি সংস্কৃতির ক্ষেত্রেও আমরা অনেক দূর এগিয়ে যেতে চাই। আশা করি সামনের দিনগুলোতে কাজিপুরের সংস্কৃতির বিকাশ ভিন্নমাত্রা পাবে এবং দর্শকপ্রিয় হবে।

তিনি স্মরণ করিয়ে দেন কাজিপুরের মাটি ও মানুষের শিল্পী বিশিষ্ট পালাকার ও বাউল সঙ্গীত শিল্পী মরহুম হাসান আলী চিশতি, আলহাজ্ব নবীর হোসেন চিশতি, স্বাধীন বাংলা বেতারের প্রথম কণ্ঠশিল্পী মরহুম শাহ আলী সরকারকে। তারা এলাকার জন্য অনেক সুনাম বয়ে এনে ইতিহাসের অংশ হয়ে আছেন।

এই কাজিপুরেরই সন্তান মাহমুদুল হাসান লালন বর্তমানে সিরাজগঞ্জ জেলার কালচারাল অফিসার হিসেবে নিয়োজিত আছেন। তিনি জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ে নাটক ও নাট্যতত্ত¡ বিভাগে এমফিল করছেন।

সিরাজগঞ্জের খ্যাতিমান সঙ্গীত শিক্ষক মিলন কুমার, তবলা বাদক সঞ্জীব কুমার কাজিপুরের সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে এগিয়ে নিতে কাজ করে যাচ্ছেন। বাংলাদেশ বেতারের নিয়মিত গেয়ে চলেছেন শিল্পী শাহজাহান আলী, বেলাল হোসেন ও মুকুল। এরা সবাই কাজিপুরের গর্বিত সন্তান।

খেলাধুলাকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে যিনি সোনামুখীকে উপজেলার মধ্যে ক্রীড়া নগরী হিসেবে প্রতিষ্ঠায় কাজ করে যাচ্ছেন তিনি হচ্ছেন ঠাকুরগাঁ জেলার সিনিয়র সহকারি জজ সোনামুখীর সন্তান আবু তালেব। তার গতিশীল নেতৃত্বে এরই মধ্যে ব্যাডমিন্টন, ক্রিকেট, ফুটবল, ভলিবল টুর্নামেন্ট সফলভাবে সমাপ্ত হয়েছে।

 সবার আদর ভালোবাসায় গেয়ে চলেছেন ফজলে আনোয়ার মিন্টু, নাজনীন, লিলি, শুভ্র, অন্তু, মুকুল, শফিকুল, নুরুল ইসলাম, শাপলা, মিম, আব্দুল কাদের, পিনথি, প্রজ্ঞা শ্রাবনী. জুলেখা সরকার, আয়েশা, আশা মনি, মাহিয়া আশা, মিম সরকার প্রমূখ শিল্পীবৃন্দ।

 সঙ্গীত পরিচালক শামস ইলাহী অনু সঙ্গীতের দিক নির্দেশনার কাজ করেন। সব মিলে সবার ভালোবাসায় ধন্য হয়ে কাজিপুরের সংস্কৃতি এক ভিন্নমাত্রায় নতুনের পথে এগিয়ে যাচ্ছে।

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর
এই বিভাগের আরো খবর