বৃহস্পতিবার   ২৩ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ৯ ১৪২৬   ২৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

দৈনিক জামালপুর
৫৫

গোসল ও দাঁত ব্রাশ না করায় ডিভোর্স চান তীক্ত স্ত্রী

প্রকাশিত: ১২ জানুয়ারি ২০২০  

সংসারে অশান্তি, শারীরিক অক্ষমতা, মানসিক নির্যাতন, ভরণপোষণে ত্রুটি, যৌতুকের জন্য একজন নারী ডিভোর্স নিতে চান। এর বাইরে কোনো কারণে স্ত্রীরা সাধারণত স্বামীকে ডিভোর্স দিতে চান না। তবে এমন বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ কারণের বাইরে আরেকটি কারণে স্বামীকে ডিভোর্স দিতে চান এক স্ত্রী। কারণটি হচ্ছে স্বামীর অপরিচ্ছন্নতা। স্বামী গোসল-দাঁত ব্রাশ করেন না বলে এমন সিদ্ধান্ত নেন স্ত্রী। এ অদ্ভুত খবর জানিয়েছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

 

সংবাদমাধ্যমটির খবরে বলা হয়, ভারতের বিহার রাজ্যের বৈশালী জেলায় মণীশ রাম ও সোনি দেবী দম্পতি বসবাস করেন। মনের মিলের দিক থেকে উভয়ই সন্তুষ্ট। তবে তাদের সম্পর্কের অবনতির কারণ অপরিচ্ছন্নতা। মণীশ সব সময় অপরিচ্ছন্ন থাকতে পছন্দ করেন। শীত-গ্রীষ্ম-বর্ষাসহ সব ঋতুতেই গোসল করেন না তিনি। সকালে উঠে দাঁত ব্রাশ করতেও তার কষ্ট হয়।

 

সোনী দেবী জানান, অনেক দিন হয়েছে আর নয়। এ অপরিচ্ছন্ন ব্যক্তির সঙ্গে একই বিছানায় আর থাকতে চান না। তিনি বিচ্ছেদ চান।

 

তিনি আরো জানান, আগে শাশুড়ির ভয়ে মণীশ গোসল করতেন। সকালে দাঁত ব্রাশও করতেন। তবে শাশুড়ির মৃত্যুর পর একেবারই গা ছাড়া দিয়েছেন মণীশ। টানা আট থেকে ১০ দিন গোসল করতেন না। দাঁত ব্রাশ একেবারেই ছেড়ে দেন। কোনো পথ না দেখে ডিভোর্সের মামলা করেন সোনী। মামলায় তার জীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে উল্লেখ করে মুক্তি চান তিনি।

 

সোনী দেবী মামলাটি করেন মহিলা কমিশনে। মহিলা কমিশন সোনীকে ডিভোর্স না করার পরামর্শ দিয়েছে। আরো দুমাস দুজনকে একসঙ্গে থাকার পরমার্শ দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি মণীশকেও নিয়মিত গোসল ও ব্রাশ করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

 

ওই সংবাদমাধ্যমকে মণীশ জানান, তিনি স্ত্রীর সঙ্গে থাকতে চান। একই সঙ্গে নিজের বদ অভ্যাস পরিবর্তন করতে শপথ নেন।

 

২০১৭ সালে মণীশ রামের সঙ্গে সোনী দেবীর বিয়ে হয়। সেই থেকে সোনীর চোখে স্বামীর বদ অভ্যাস ধরা পড়ে।

 

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর