• রোববার   ০৯ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২৫ ১৪২৭

  • || ১৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

দৈনিক জামালপুর
সর্বশেষ:
বঙ্গমাতার ৯০তম জন্মবার্ষিকী উদযাপনে গাইবান্ধায় সেলাই মেশিন বিতরণ বঙ্গমাতার ৯০তম জন্মবার্ষিকী উদযাপনে গাইবান্ধায় সেলাই মেশিন বিতরণ ‘নগদ’র মাধ্যমে শেখ হাসিনার উপহার পেলেন ১ হাজার ৩শত দুস্থ নারী ‘নগদ’র মাধ্যমে শেখ হাসিনার উপহার পেলেন ১ হাজার ৩শত দুস্থ নারী প্রতি ডোজ ২৫৪ টাকায় করোনার টিকা পাবে বাংলাদেশও বাংলাদেশে কোন আদিবাসী নেই, আছে উপজাতি: সন্তু লারমা ও রাজা দেবাশীষ “বাংলাদেশের সঙ্গে আরো জোরালো সম্পর্ক গড়ার উদ্যোগ ভারতের” সর্বোচ্চ বৈদেশিক সাহায্য ॥ নতুন রেকর্ড বাংলাদেশের ইতিহাসে পার্বত্য চট্টগ্রামকে আলাদা রাষ্ট্র বানাতে নিজেদেরকে আদিবাসী দাবি “পোশাকশিল্পে অবিশ্বাস্য রকমের প্রবৃদ্ধি হবেই”
১৬৫৭

জন্মান্ধ হয়েও বালকের তিন ভাষায় কোরআন মুখস্ত

দৈনিক জামালপুর

প্রকাশিত: ২৩ ডিসেম্বর ২০১৯  

মিশরের বিস্ময় বালক আব্দুল্লাহ আম্মার মুহাম্মাদ আস-সাঈদ জন্মগতভাবেই অন্ধ। আট বছর বয়সে মাত্র তিন মাসে পুরো কোরআন মুখস্ত করে বিশ্বব্যাপী আলোড়ন সৃষ্টি করেছিলেন। ৯ বছর বয়সে আরবি ভাষা ছাড়াও আরো ২টি ভাষায় পবিত্র কোরআন মুখস্থ করেছেন।   তীক্ষ্ণ মেধার অধিকারী আম্মার শুনে শুনেই ৮ বছর বয়সে পুরো কোরআন মুখস্ত করেন। পরবর্তী এক বছরে ইংরেজি ও ফরাসি ভাষায় কোরআনের অনুবাদ শেখেন। ৯ বছর বয়সেই তিনি তিনটি ভাষায় পবিত্র কোরআন আয়ত্ব করেন।   মিসরে ২০১৮ সালে ২৫তম আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করার পর সবাই জানতে পারে যে অন্ধ আম্মার ৮ বছর বয়সে মাত্র ৩ মাসে পুরো কোরআন মুখস্ত করেছিলেন।    মিসরের এক সাধারণ পরিবারে আম্মারের জন্ম। বাবার উৎসাহ উদ্দীপনা এবং আগ্রহেই আম্মার খুব দ্রুত কোরআন হেফজ সম্পন্ন করেন। আম্মারের বাবা তার জন্য ইংরেজি ও ফরাসি ভাষার দুই জন উস্তাদ ঠিক করে দেন। কোরআনের জ্ঞান লাভে সন্তানের জন্য পিতার এ অবদান ছিল অনন্য আগ্রহ।   ছোট্ট আব্দুল্লাহ আম্মার তার পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে বেশি সময় নেয়নি। মাত্র ৯ বছর বয়সেই ইংরেজি ও ফরাসি অনুবাদসহ পুরো কোরআন মুখস্ত করতে সক্ষম হন।   ২০১৬ ও ২০১৮ সালে আব্দুল্লাহ আম্মার মিসরের জাতীয় হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে শ্রেষ্ঠ হাফেজ নির্বাচিত হন। শ্রেষ্ঠ হাফেজ নির্বাচিত হওয়ায় মিসরের তৎকালীন ধর্মমন্ত্রী মুহাম্মাদ মুখতার জুমআহ তাকে সম্মাননা প্রদান করেন এবং প্রেসিডেন্ট আব্দেল ফাত্তাহ আল-সিসিও তাকে নগদ আর্থিক পুরস্কার এবং সার্টিফিকেট প্রদান করেন।   মিসরের জামেয়া আল-আজহারের প্রক্টর শায়খ ড. আহমাদ আত-তাইবি তার অসাধারণ কৃতিত্বের প্রশংসা করেন। জামেয়া আল-আজহার তার ও তার পরিবারের পবিত্র হজ সম্পাদনের ব্যবস্থা করেন।   আব্দুল্লাহ আম্মার ৩ ভাষায় পুরো কোরআন আয়ত্ব করে থেমে থাকেন নি। তিনি ১১ বছর বয়সে হাদিসের প্রসিদ্ধ ৬ কিতাবের গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়ের হাদিসগুলো মুখস্ত করতে সক্ষম হন। আব্দুল্লাহ আম্মার বাস্তবে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী হলেও শুনে শুনে জাহেলি ও উমাইয়া যুগের শ্রেষ্ঠ কবিদের কবিতা ও শেষ আয়ত্ব করেন।   দৃষ্টি প্রতিবন্ধী আম্মার ছোট থাকা অবস্থায় রেডিওতে কোরআন শুনে তা শেখার আগ্রহ প্রকাশ করেন। তারপরই তার আকাঙ্খা পূরণে এগিয়ে আসেন তার বাবা। সেই থেকেই শুরু। তারপর একে একে তিন ভাষায় কোরআন আয়ত্বসহ হাদিস ও কবিতা আয়ত্ব করেন আম্মার।   আব্দুল্লাহ আম্মার শুনে শুনে পবিত্র কোরআনের অসাধারণ তেলাওয়াতও আয়ত্ব করেন। আম্মার ১০টি সূর ও ভঙ্গিমায় সাবলিলভাবে পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত করতে পারেন।   ১২ বছর বয়সী আব্দুল্লাহ আম্মার বর্তমানে জামেয়া আল-আজহারের পড়াশোনা করছেন। উচ্চতর পড়াশোনায় আম্মারকে আল-আজহার সার্বিক সহায়তা দেবে। জামেয়া আল-আজহার থেকেই আম্মার ডক্টরেট ডিগ্রি লাভ করতে চায়।

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর
ধর্ম বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর