বুধবার   ২২ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ৮ ১৪২৬   ২৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

দৈনিক জামালপুর
২৬৭৭

ফিরে আসছে আততায়ী

প্রকাশিত: ২৬ ডিসেম্বর ২০১৯  

 আততায়ী বাংলাদেশের প্রথম থ্রিলার ওয়েব সিরিজ। ২০১৭ সালের ১৬ই ডিসেম্বর থেকে ইউটিউবে ধারাবাহিকভাবে প্রচারিত হচ্ছিলো ধারাবাহিকটি। প্রথম পর্ব “খুন” থেকেই ওয়েব সিরিজটি বেশ সাড়া পাচ্ছিলো দর্শকদের কাছ থেকে। প্রচারিত হয়েছিলো লাগাতার ১০টি পর্ব। একজন সিরিয়াল কিলারের মনস্তত্ত্বকে খুব কাছ থেকে অবলোকন করানোর প্রচেষ্টা ছিলো ওয়েব সিরিজটির প্রতিটি পর্বে। একটি নৃশংস খুনের নেপথ্যের কাহিনী থেকে সিরিজটির গল্প একটু একটু করে এগিয়ে যাচ্ছিলো এক ভদ্রবেশী রক্তলোলুপ নরপিশাচের মুখোশ উন্মোচনের দিকে।

 

প্রথম ১০ পর্বে কুশীলবদের অভিনয় ও কাহিনীর চিত্রায়ন প্রশংসিত হয়েছে নাট্যব্যক্তিত্ব ম. হামিদ, সুনামধন্য অভিনেতা ও চিত্রপরিচালক গাজী রাকায়েত, প্রভৃতি গুণীজনের কাছে। কিন্তু প্রধানত ওয়েব সিরিজটি যে ইউটিউব চ্যানেলে প্রচারিত হয়েছিলো তার গাফিলতি ও প্রোমোশনের মাধ্যমে দর্শকদের কাছে সিরিজটি পৌঁছে দেওয়ার অপারগতার দায়ে এক সময়ে যবনিকা পড়েছিলো “আততায়ীতে,” তাই ১০টি পর্ব প্রচার হওয়ার পর তা একরকম আড়ালেই চলে গিয়েছিলো। সম্প্রতি স্টার বাংলা চ্যানেলে আবারো পুনরুত্থান ঘটেছে সিরিজটির।

নির্দেশক অনিমেষ চৌধুরী আবির
নির্দেশক অনিমেষ চৌধুরী আবির

 

“আততায়ী”- গল্প শুরু হয়েছে একজন নিতান্তই সাধারন ও নিরীহ যৌনকর্মীর নৃশংস হত্যাকে কেন্দ্র করে। হত্যাকর্মের পৈশাচিকতাই ছিলো এর অভিনবত্ব। নিহত মেয়েটির নাম রাবেয়া, সে খুন হয়েছিলো গভীর রাতে মহানগরীর একটি রেল ক্রসিং-এর সামনে। তার মৃতদেহ আবিষ্কৃত হওয়ার পর এর বিকৃতি দেখে নিদর্শন পাওয়া গিয়েছিলো খুনীর বিকৃত মানসিকতার। একটি তীক্ষ্ণ ছুরি দিয়ে রাবেয়ার গলা কেটে ফেলার পর তার বুক ও পেট চিরে ভেতরের সমস্ত অর্গান বের করে রাখা ছিলো, এবং তার ডান হাতের বৃদ্ধাঙ্গুলিটি ছিলো হাত থেকে বিচ্ছিন্ন। একজন যৌনকর্মীর প্রতি এমন ভয়াবহ জিঘাংসা কার বা কেনো ছিলো, স্বয়ং পুলিশ-ও ভেদ করতে পারেনি এই রহস্য।

 

এই বিষয়ে তদন্ত করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিলো একটি সংবাদপত্রের অপরাধ বিষয়ক রিপোর্টার আবু হোসেনকে। অনভিজ্ঞ আবু তদন্ত শুরু করতেই তার সামনে উন্মোচিত হচ্ছিলো এই গল্পের একের পর এক নতুন অধ্যায়। একের পর এক ভাসমান পতিতারা খুন হয়েই চলেছিলো। কে সেই নরপিশাচ? অপরূপা বিউটি পার্লারের মালিক অনন্যা ও তার ডানহাত শামসুর? যার কাছে পার্টটাইম কাজ করতো রাবেয়ার? নাকি অসহায় যৌনকর্মীদের রাতের “আশ্রয়” দেওয়া ডাক্তার মোস্তাফিজুর রহমান? যার ব্যাপারে জনশ্রুতি আছে, যে যেসব মেয়েরা তার হাসপাতালে রাতে ঢোকে, পরদিন থেকে আর তাদের খুঁজে পাওয়া যায় না? নাকি অপ্রকৃতিস্থ চিত্রকর ও ফটোগ্রাফার দস্তগীর, যাকে প্রতিটি হত্যার সময় সবার আগেই পাওয়া যায় ঘটনাস্থলে? অথবা ভবঘুরে লোকমান ফকির? যে কিনা প্রতিটি হত্যার একমাত্র প্রত্যক্ষ্যদর্শী?

সাংবাদিক আবুল হোসেন চরিত্রে পারভেজ রানা পলাশ
সাংবাদিক আবুল হোসেন চরিত্রে পারভেজ রানা পলাশ

 

সিরিজটিতে সাংবাদিক আবু হোসেন চরিত্রে অভিনয় করেছেন পারভেজ রানা পলাশ, অভিনেত্রী মারিয়া হিসেবে আছেন সায়মা চৌধুরী। বিশেষ একটি চরিত্রে ফোটোগ্রাফার দস্তগীর হিসেবে আছেন চিত্রনায়ক আফফান মিতুল। একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন কিংবদন্তী অভিনেত্রী ফালগুনী হামিদ ও সুঅভিনেত্রী তনিমা হামিদ। এছাড়া আততায়ীতে কাজ করেছেন একঝাঁক অভিজ্ঞ থিয়েটার অভিনেতা ও বেশকিছু নতুন মুখ।

 

আততায়ীর সর্বশেষ প্রচারিত এপিসোড ছিলো এর দশম পর্ব “নরক থেকে।“ এটি ইউটিউবে কাঙ্খিত সাড়া না পাওয়ায় পরবর্তীতে ফেসবুকে কিছু পর্ব প্রচার করা হয়েছে। সেখানে এর ব্যাপক জনপ্রিয়তাই প্রমাণ করেছিলো যে আততায়ী দর্শকদের কাছে ভালোভাবে পৌঁছতে পারলে হয়তো বা সেটির অকালমৃত্যু ঘটতো না। ধারাবাহিকটি অনতিবিলম্বে প্রচারিত হওয়া বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বিপুলসংখ্যক দর্শক জানতে চেয়েছিলেন এটি বন্ধ হয়ে যাওয়ার নেপথ্য কারণ, বা এটি পরবর্তীতে আবার প্রচারিত হবে কিনা এই বিষয়ে তথ্য।

মারিয়া চরিত্রে সাইমা চৌধুরী
মারিয়া চরিত্রে সাইমা চৌধুরী

 

অবশেষে স্টার বাংলা চ্যানেলে আবারো শুরু হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের প্রথম থ্রিলার ওয়েব সিরিজ “আততায়ী”-র সম্প্রচার। প্রতি সপ্তাহের বুধবার ও বৃহস্পতিবার রাত টায় স্টার বাংলার ফেইসবুক পেইজে প্রচারিত হবে আততায়ী-র পর্বগুলো। এই ব্যাপারে আততায়ী-র কাহিনীকার ও পরিচালক অনিমেষ চৌধুরী দর্শকদের সিরিজটি দেখার আহবান জানান। তিনি বর্তমানে ১০ পর্বের পরবর্তী সিজন তৈরি করতে আশাবাদী। সিরিজটি আবারো দর্শকনন্দিতা পেলে তিনি আততায়ীকে পুনরায় ফিরিয়ে আনবেন বলে জানিয়েছেন।

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর
এই বিভাগের আরো খবর