শনিবার   ২৫ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ১১ ১৪২৬   ২৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

দৈনিক জামালপুর
সর্বশেষ:
জেরুজালেমের আল-আকসা মসজিদে ইসরাইলি বাহিনীর হামলা বিজেপি ছাড়লো ভারতের মধ্যপ্রদেশের ৮০ জন মুসলিম নেতা আর্থিক প্রযুক্তি ব্লকচেইন বিষয়ে কোর্স চালুতে সহায়তা দেবে সরকার আন্তর্জাতিক আদালতের আদেশ প্রত্যাখান করলেন মিয়ানমার সরকার ইসলামী গণতান্ত্রিক পার্টির সমর্থন পাচ্ছে তাপস ও আতিকুল জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল অ্যাওয়ার্ড পেলেন ১৩ জন সরকারের ধারাবাহিকতায় অগ্রগতি দৃশ্যমান: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জেনে নিন ‘আউজুবিল্লাহ’ পাঠের ফজিলত ও উপকারিতা বকশীগঞ্জে হাতির আক্রমন থেকে বাঁচতে টর্চলাইট ও জেনারেটর বিতরণ নিজেদের মধ্যে দেশ’প্রেমের স্পৃহা বজায় রাখতে হবে, বললেন সেনাপ্রধান
৭৭

বকশীগঞ্জের কামালপুরে সওজ’র জমি বেদখল

প্রকাশিত: ১১ ডিসেম্বর ২০১৯  

জামালপুরের বকশীগঞ্জ উপজেলার ধানুয়া কামালপুর ইউনিয়নের কামালপুর মৌজায় সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের প্রায় ১০ একর জমি অবৈধভাবে দখলে রেখেছে স্থানীয় দুর্বৃত্তরা।

 

দীর্ঘদিন ধরে সরকারের ওই সম্পত্তি উদ্ধারের জন্য স্থানীয়রা লিখিতভাবে দাবি জানালেও সওজ’র সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অজ্ঞাত কারণে তা উদ্ধারের জন্য এখন পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। 

 

স্থানীয় সূত্র বলছে, উপজেলার কামালপুর মৌজায় সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের প্রায় ১০ একর ভূমি রয়েছে যার বর্তমান আনুমানিক মূল্য অন্তত ১০ কোটি টাকা। দেশ স্বাধীন হওয়ার পূর্বেই ময়মনসিংহ সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ শেরপুর, শ্রীবরদী, বকশীগঞ্জ, সানন্দবাড়ি, রাজিবপুর ও দেওয়ানগঞ্জ এলাকায় সওজ’র কার্যক্রম দ্রুত তদারকির উদ্যোগ গ্রহণ করে। সেই লক্ষ্য বাস্তবায়নের জন্য সওজ’র তৎকালীন কর্তৃপক্ষ বকশীগঞ্জের কামালপুর মৌজার ১০ একর ভূমি ক্রয় করে সেখানে একটি ডাকবাংলো নির্মাণ করে। এরপর থেকে অদ্যাবধি কামালপুরে সওজ’র ডাকবাংলোয় একজন কর্মচারীকে নিয়োগ দেয়া হয়। সেখানে নিয়মিত অবস্থান করে কামালপুর মৌজার ১০ একর ভূমি দেখাশুনাসহ ওই অঞ্চলে সওজ’র সব কার্যক্রম দ্রুত তদারকি করে আসছেন। 

 

সরেজমিন ঘুরে জানা গেছে, ময়মনসিংহ সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের ভোগদখলীয় কামালপুর মৌজার ১০ একর ভূমি বিআরএস রেকর্ডের সময় সড়কের দখল বর্ণনায় ১ নম্বর খতিয়ানে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। সওজ’র ওই ১০ একর ভূমি ২০০১ সন পর্যন্ত সওজ’র দখলেই ছিল। তখন কামালপুর ডাকবাংলোয় কর্মরত সওজ’র চকিদার আবুল হোসেন দীর্ঘদিন সওজ’র পক্ষে ওই জমি চাষাবাদ করেছেন।

 

কিন্তু চকিদার আবুল হোসেন চাকরি থেকে অবসরের পর কামালপুর এলাকার ইব্রাহিম খলিল ইল্লা, চান মিয়া, দুলাল মিয়া, কুহিলি মিয়া, মো. নুরী, আব্দুল কাদের, ওয়াল মিয়া, নুরল হক ও ওবায়দুল হকসহ প্রায় অর্ধ শতাধিক স্থানীয় ভূমিদস্যু সওজ’র ওই জমির সিংহভাগ জবর দখল করে নেয়। ওই ভূমিদস্যুরা সওজ’র ১০ একর ভূমিতে জোরপূর্বক বাড়িঘর নির্মাণ করে অদ্যাবধি অবৈধভাবে ভোগ দখল করে আসছে। এ ব্যাপারে স্থানীয় সচেতন জনতা সওজ’র সরকারি সম্পত্তি উদ্ধারের দাবি জানালেও সওজ’র সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আজো অজ্ঞাত কারণে ওই সম্পত্তি উদ্ধারের জন্য কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। 

 

বকশীগঞ্জের কামালপুর ইউপির উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান, বকশীগঞ্জের কামালপুর মৌজার ৬.৮১ একর ভূমি বিআরএস রেকর্ডের সময় সড়কের দখল বর্ণনায় ১ নম্বর খতিয়ানে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। ওই জমিতে স্থানীয় বাসিন্দারা অবৈধভাবে বাড়িঘর নির্মাণ করে বসবাস করছে। এছাড়াও ১ নম্বর খতিয়ানের কিছু জমিতে একটি সরকারি গুচ্ছগ্রাম নির্মিত হয়েছে।

 

জামালপুর সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের সার্ভেয়ার আলী আশরাফ জানান, বকশীগঞ্জ উপজেলার কামালপুর মৌজায় সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের একটি ডাকবাংলো রয়েছে। কামালপুর মৌজায় থাকা সড়ক ও জনপথ বিভাগের সব সম্পত্তি ডিসির নামে বিআরএস রেকর্ডভুক্ত হয়েছে। তবে সেখান থেকে সওজ’র কিছু জমি জেলা পরিষদকে হস্তান্তর করা হয়েছে। জেলা প্রশাসন ওইসব ভূমি রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব পালন করে। 

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর
এই বিভাগের আরো খবর