শুক্রবার   ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৯ ১৪২৬   ১৫ রবিউস সানি ১৪৪১

দৈনিক জামালপুর
১৭০

সানন্দবাড়ী যমুনা নদী ভাঙন নিয়ে কবিতা

প্রকাশিত: ৬ ডিসেম্বর ২০১৯  

সানন্দবাড়ী যমুনা নদী ভাঙন নিয়ে কবিতা

 

   

ভয়াল নদীর করাল গ্রাসে

          সরাতে হয় বাড়ী, 

  মাটির সাথে জীবন গাঁথা

         কেমনে যাব ছাড়ি!

 

   ভোরের আযান কী যে মধুর

             মনের মাঝে সুখ,

   ঘুম হতে উঠেই দেখি

            প্রতিবেশির মুখ।

 

     অনেক স্বজন চলে গিয়ে

            কোথায় নিল ঠাঁই,

  পিতা পুত্র স্বজন ভ্রাতা

               একত্রে আর নাই।

 

  চরমাদারে শশুর বাড়ি

           উঠায় টিনের ঘর,

  বাঁশতলিতে মেঝ ছেলে

           মধ্য বালুর চর।

 

    আগে ছিল বড় নদী

             পশ্চিমে দশ কিলো,

  এক পলকে ছোঁবল দিয়ে

         সবই কেড়ে নিল।

 

     বাড়ির ঘর খুলতে দেখে

             ছোট মেয়ে কাঁদে,

    অনেক স্বজন নিঃস্ব হয়ে

           উঠল গিয়ে বাঁধে।

 

     নদী গর্ভে সবই বিলীন

          সাজে পাগল বেশ, 

  বউপোলাপান নিয়ে কেহ

          হলো নিরূদ্দেশ।

 

     নদী এখন নিকটবর্তী

           কষ্টে বসবাস,

    ইরির জমি বালু পড়ে

            এখন ভূট্টা চাষ।

 

   বর্তমানে ভীষণ ভাবে

          ক্ষতিগ্রস্ত যারা, 

  মৌলভীরচর,  টুপকারচর

          সাথে মণ্ডলপাড়া।

 

   পশ্চিম পাড়া বিলীন হলো

           ফুরায় মোল্লারচর,

   কট বন্ধক নিয়ে জমি

            উঠায় কেহ ঘর।

 

      হাজার সুধী ভাঙ্গন দেখতে

             নদীর পাড়ে আসে,

    কষ্ট দেখে অনেক সময়

              দাঁড়ায় তাদের পাশে।

 

     বালুর চরের জমির সাথে 

              করে বিনিময়,

     অাগে ছিল পাঁচশ' বিঘা

             এখন অসহায়।

 

     পানির মধ্যে চলাফেরা

            হলো গর্ত কাদা,

     পরিশ্রমী গ্রামের মানুষ

            প্রীতির ডোরে বাঁধা।

 

       বিপদ দেখে মাথায় উঠে

               উচ্চ রক্ত চাপ,

     ভিটা ছেড়ে চলে যাবেন

           কবরে মা - বাপ।

 

                             (চলমান......)

★"কবিতাটি পরে যদি আপনাদের ভালো লাগে তাহলে বাকি অংশ প্রকাশ করবো।

 

কবি, 

আলহাজ্ব মোঃআজিজুর রহমান

(অবস্বর প্রাপ্ত), সহকারী শিক্ষক

সানন্দ বাড়ী বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয় 

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর