• শুক্রবার   ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ১৪ ১৪২৭

  • || ১৪ রজব ১৪৪২

দৈনিক জামালপুর

মোশাররফকে ঘুষ দেয়ায় কানাডায় নাইকোর জরিমানা ৯৫ লাখ ডলার

দৈনিক জামালপুর

প্রকাশিত: ১৯ জানুয়ারি ২০২১  

সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী একেএম মোশাররফ হোসেনকে ঘুষ দেয়ার অপরাধে কানাডাভিত্তিক বহুজাতিক কোম্পানি নাইকো রিসোর্সেস লিমিটেডকে ৯৫ লাখ কানাডীয় ডলার (প্রায় ৭০ কোটি টাকা) জরিমানা দিতে হয়েছে। কানাডার ক্যালগারির আদালত এ সাজা দেয় বলে কানাডার বিভিন্ন সংবাদপত্রে খবর প্রকাশিত হয়। নাইকোকে এ জরিমানার পর থেকে টরেন্টো স্টক এক্সচেঞ্জে নাইকো রিসোর্সেস লিমিটেডের শেয়ারের দর ৩.২ শতাংশ কমে যায়।
রায় অনুযায়ী, নাইকোকে ৮২ দশমিক ৬ মিলিয়ন ডলার জরিমানা এবং নাইকোর কারণে ক্ষতিগ্রসত্মদের ১৫ শতাংশ ক্ষতিপুরণসহ মোট ৯৫ লাখ ডলার ৩০ দিনের মধ্যে দিতে হবে। শুধু জরিমানাই নয়, নাইকোর কর্মকাণ্ড আগামী তিন বছর পর্যবেক্ষণ করবে আদালত।
রায়দানকারী বিচারক স্কট ব্রকার বলেছেন, ঘুষের এ বিষয়টি কোম্পানির অংশীদারদের জন্য যেমন অবমাননাকর, তেমনি কানাডাবাসীর জন্য বিব্রতকর। এ ঘটনা কানাডার জ্বালানি রাজধানী বলে খ্যাত ক্যালগারির জন্য একটি কলঙ্কজনক অধ্যায়।
রায়ের পর কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অ্যাড স্যাম্পসন এক বিবৃতিতে বলেছেন, তখন যা হয়েছিলো (ঘুষ দেয়া), তা ভুল হয়েছিলো। আমরা তা স্বীকার করছি।
আদালতে নাইকো স্বীকার করেছে, ২০০৫ সালের মে মাসে মোশাররফকে প্রায় ২ লাখ ডলার দামের একটি টয়োটা ল্যান্ড ক্রুইজার সিগন্যাস-২০০৫ উপঢৌকন দেয় তারা। এরপর তাকে বিভিন্ন স্থানে ভ্রমণ বাবদ ৫ হাজার ডলার দেয়া হয়। ওই সময় ক্যালগারিতে অনুষ্ঠিত এক জ্বালানি সম্মেলনে প্রতিমন্ত্রী অংশ নেয়ার সময় এ লেনদেন হয়।
২০০৫ সালে নাইকোর অধীনে থাকা টেংরাটিলায় পর পর দুটি বিস্ফোরণ ঘটে। এতে গ্যাস সম্পদ ও পরিবেশের ব্যাপক ক্ষতি হয়। এজন্য বাংলাদেশ সরকার নাইকোর কাছে ৭৫০ কোটি টাকার ক্ষতিপূরণ দাবি করলেও আজো তা পূরণ করেনি কোম্পানিটি। এসব দুর্ঘটনার পর নাইকো চাপে পড়ে। এরপরই নাইকো তৎকালীন জ্বালানি প্রতিমন্ত্রীকে ঘুষ দেয়।
নাইকোর ঘুষ দেয়ার বিষয়টি তখন বাংলাদেশের বিভিন্ন মিডিয়ায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের জন্ম দেয়। ওই ঘটনায় তৎকালীন কানাডিয়ান হাইকমিশনার ডেভিড স্প্র্রোউলি বাংলাদেশে নাইকোর প্রেসিডেন্ট কাশিম শরিফের সঙ্গে দেখা করেন। অবস্থার শিকার হয়ে মোশাররফকে ঘুষ দেয়া হয়েছিলো বলে স্প্র্রোউলিকে জানান শরিফ। 
রায়ের বিষয়ে নাইকোর আইনজীবী ক্রিস্ট্র্রিন রবিডুয়াক্স বলেন, এ সাজা প্রতিষ্ঠানটির ওপর একটি বড় ধরনের আঘাত। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল কানাডার প্রেসিডেন্ট জেমস কটজ বলেন, অপরাধ করে পার পাওয়া যাবে, এমন ধারণা এখন আর কোম্পানিগুলো করতে পারবে না।

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর