সোমবার   ১৮ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৩ ১৪২৬   ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

দৈনিক জামালপুর
২৪৪

রাস্তার অভাবে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাতায়াত বন্ধ প্রায়

প্রকাশিত: ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

মাত্র ১শ’গজ রাস্তার অভাবে চরগয়টাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাতায়াত প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। ঐ এলাকার জমির মালিকরা রাস্তার জায়গা না দেওয়ায় এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিদের একাধীকবার জানানো হলেও কার্য্যকরি কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি ।

কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারী উপজেলার দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের দীর্ঘ ২৮ বছর অতিবাহিত হলেও চর গয়টা পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টিতে যাতায়াতের জন্য এখন পর্যন্ত কোন রাস্তা তৈরি করার উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। বিদ্যালয়টি স্থাপিত হয় ১৭সেপ্টেম্বর ১৯৯০ সালে। রেজি নং ৪১১৬ /১১/ তারিখ ৪জানুয়ারী ১৯৯৬ সাল, এমপিও ভূক্তি হয় ২৮অক্টোম্বর ১৯৯৬ সালে,  জাতীয় করণ হয় ১জানুয়ারী ২০১৩ সালে।

বিদ্যালয়টি যাতায়াতের রাস্তা না থাকায় কোমলমতি শিক্ষার্থী, শিক্ষক কর্মচারী ও সাধারন মানুষ অতি কষ্টে জমির আইল দিয়ে যাতায়াত করছেন। ২৮ বছর অতিবাহিত হলেও রাস্তাটি নির্মাণের কোন উদ্যোগ নেয়নি প্রশাসন। বিদ্যালয়টির দুই পাশে বাড়ী, অপর পাশে গাছ বাগান ও আবাদি জমি রয়েছে।

চর গয়টাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণী শিক্ষার্থী নাহিদ হোসেন, মিনা খাতুন, চতুর্থ শ্রেণীর সাব্বির হোসেন, রুপসী খাতুন, পঞ্চম শ্রেণীর শফিকুল ইসলাম ও সুমি খাতুন জানায়, আমাদের স্কুলে আবাদি জমির চিকন আইল দিয়ে ও অন্যের বাড়ির ভিতর দিয়ে যাতায়াত করতে হয়।

প্রায় সময়ে জমি ও বাড়ির মালিক যাতায়াত করতে নিষেধও করেন। শুস্ক মৌসমে অতি কষ্টে বিদ্যালয়ে যাতায়াত করতে পারলেও বর্ষাকালে একেবারে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। ফলে এসময় প্রায় বিদ্যালয়টি বন্ধ থাকে। দাঁতভাঙ্গা বাজার হয়ে উত্তরে ইটালুকান্দার রাস্তাটির মেছের উদ্দিনের বাড়ি সংলগ্ন চর গয়টাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দুরত্ব প্রায় ১শ’গজ।

ওই বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি অমেজ উদ্দিন বলেন, খাঁস জমি না থাকায় রাস্তাটি মেরামত করা যাচ্ছে না। জমির মালিকদের কাছে রাস্তার জন্য জায়গা ক্রয় করতে চাইলেও বিক্রি করছেন না তারা।

চর গয়টাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম জানান, রাস্তাটির বিষয়ে প্রশাসনসহ জনপ্রতিনিধিদের বহুবার জানানো হয়েছে। কিন্তু ২৮ বছরেও সমস্যার সমাধান হয়নি।
দাঁতভাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান সামছুল হক মৌলভী বলেন, আমি অনেকবার চেষ্টা করেছি রাস্তাটি নির্মান করে দেওয়ার জন্য। কিন্ত জমির মালিকরা রাস্তা দিচ্ছে না।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নজরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর
এই বিভাগের আরো খবর