মঙ্গলবার   ১০ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৫ ১৪২৬   ১২ রবিউস সানি ১৪৪১

দৈনিক জামালপুর
৯৫

শীতকালে ডায়াবেটিস রোগীদের খাদ্য তালিকায় যে ছয়টি ফল রাখবেন!

প্রকাশিত: ২১ নভেম্বর ২০১৯  

বহুমূত্র বা ডায়াবেটিস রোগীদের খাবারের প্রতি থাকতে হয় অনেক বেশি সতর্ক। ডায়াবেটিস দেহে গ্লুকোজ সঠিকভাবে প্রক্রিয়াজাতকরণে অসুবিধা সৃষ্টি করে, যা রক্তে শর্করার মাত্রা অস্বাভাবিক স্পাইকের দিকে পরিচালিত করে।

 

তাই চিকিৎসকরা ডায়াবেটিস রোগীদের চিনি যুক্ত খাবার থেকে বিরত থাকার জন্য অনেকে ফল খাওয়া থেকেও বিরত থাকতে বলেন। তবে শীতের মৌসুমী ফলগুলো বাজারে সয়লাভ হয়ে পড়ে। ডায়াবেটিস রোগীদের অবশ্যই জানা উচিত যে এই শীতের মৌসুমে কোন ফলটি বাছাই করা উচিত। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক সেই ফলগুলো সম্পর্কে-  

 

কিউই

এই সবুজ ফলটি অ্যান্টিবায়োটিক এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্যগুলির সদৃশতায় ভরা। এটি ডায়েটারি ফাইবার সমৃদ্ধ, এটি আপনার ডায়েটের নিখুঁত সংযোজন করে তোলে।

 

আপেল

এই ফলের মধ্যে অ্যান্টোসায়ানিন নামে একটি বিশেষ ধরণের অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট রয়েছে যা রক্তে শর্করাকে নিয়ন্ত্রণ করতে এবং দেহের বিপাকীয় ভারসাম্যকে উন্নত করে তার স্তরটি পরীক্ষা করতে সহায়তা করে।

 

আঙ্গুর

আঙ্গুর একটি শীতকালীন মজাদার ফল যা রক্তে শর্করার পরিচালনায় উপকারী প্রমাণিত হতে পারে। ফলের মধ্যে রেসিভেরট্রোল নামক একটি ফাইটোকেমিক্যাল থাকে যা দেহের ইনসুলিন নিঃসরণের ক্ষমতাকে উন্নত করতে সহায়তা করে।

 

কমলা

কমলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি যা একটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। কমলাতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার রয়েছে যা রক্তচাপ এবং রক্তে শর্করার মতো বিপাকীয় চিহ্নগুলোকে তাদের সর্বোত্তম স্তরে বাধা দিতে পারে।

 

নাশপাতি

নাশপাতিতে নিম্ন গ্লাইসেমিক সূচক রয়েছে। এটি শরীর কতটা দ্রুত খাদ্যকে গ্লুকোজে রূপান্তর করে তার পরিমাপ করে। বলা হয়ে থাকে যে, নাশপাতিগুলোর ত্বক দুর্দান্ত পুষ্টির মূল্য এবং উচ্চ রক্তে শর্করার মাত্রা পরিচালনা করতে বিশেষভাবে উপকারী।

 

পেয়ারা

এই ফলের একটি উল্লেখযোগ্য পুষ্টি প্রোফাইল রয়েছে। এটিতে পটাশিয়াম বেশি এবং সোডিয়াম কম। এটি ফাইবার এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ, এবং কম গ্লাইসেমিক সূচক রয়েছে।

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর