• বুধবার   ২৮ অক্টোবর ২০২০ ||

  • কার্তিক ১২ ১৪২৭

  • || ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

দৈনিক জামালপুর

শ্রীবরদীতে বিলের মাছ লুটের অভিযোগ

দৈনিক জামালপুর

প্রকাশিত: ৪ সেপ্টেম্বর ২০২০  

শেরপুরের শ্রীবরদীতে জলকেশররায় বিলের মাছ ও মাছ ধরার সরঞ্জাম লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে। গত এক সপ্তাহ যাবত ২০/২৫ জনের একটি চক্র দলদ্ধভাবে বেড় জাল দিয়ে ওই বিলের মাছ ও মাছ ধরার জাল ও নৌকা লুট করে নিয়ে যায় বলে কোর্টে দ্রুত বিচার আইনে মামলা হয়েছে । এতে ১০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন একতা মৎস জীবি সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম। প্রতিদিন দফায় দফায় বিলে হামলা চালিয়ে লুটপাটের ঘটনায় চরম ক্ষতির আশংকা করছেন ওই মৎসজীবি সমবায় সমিতির সদস্যসহ স্থানীয় মৎসজীবিরা।  

 

জানা যায়, জলকেশররায় বিলে ৫৩ দশমিক ৯৩ শতাংশ জমির জলাশয় ইজারাদার একতা মৎসজীবি সমবায় সমিতি। গত কয়েক বছর যাবত ওই সমিতির মাধ্যমে বিলে দেশীয় জাতের মাছের চাষ করে আসছে। এতে বছরের বেশিরভাগ সময় শতাধিক মৎসজীবি মাছ আহরণ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। এছাড়াও ওই বিলের উৎপাতি মাছ স্থানীয়ভাবে চাহিদা মিটিয়েও বছরে লাখ লাখ টাকার মাছ জেলা শহর সহ বিভিন্ন বাজারে বিক্রি হয়। গত শনিবার থেকে ওই বিলের পাশের বনপাড়া গ্রামের সংঘবদ্ধ ২০ হতে ২৫ জনের একটি চক্র আগাম ঘোষণা দিয়ে লাঠিসোঠাসহ বেড় জাল নিয়ে মাছ ধরতে আসে। এ সময় ওই বিলের ইজারাদার ও একতা মৎসজীবি সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলামসহ মৎসজীবিরা বাঁধা দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই চক্রটি প্রতিদিন লাঠিসোটা ও বেড় জাল দিয়ে হাজার হাজার টাকা মূল্যের মাছ ধরে নিয়ে যাচ্ছে। আজ শুক্রবার ওই চক্রটি প্রায় অর্ধলোকের সমাগম ঘটিয়ে মাছ লুটের উৎসবে মেতে উঠে। এতে গত কয়েকদিনে কমপক্ষে ১০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেন একতা মৎসজীবি সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম। তিনি বলেন, ওই চক্রটি মাছ ধরতে এলে আমরা বাঁধা দেই। এ সময় তারা আমাদের ওপর হামলা করে। আমরা প্রাণের ভয়ে ঘটনাস্থল থেকে সরে বিলের পাড়ে আসি। এ সময় তারা বিলের মাছ ও মৎসজীবিদের বেড় জালসহ নৌকা ছিনিয়ে নেয়। এভাবে প্রতিদিন বিলের মাছ লুট করে নিয়ে যাচ্ছে। এ জন্য শেরপুরের দ্রুত বিচার আদালতের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেড মো: হুমায়ুন কবির অভিযোগটি আমলে নিয়ে এফআইআর করে সাত কার্যদিবসের মধ্যে অত্র আদালতকে অবহিত করার জন্যে শ্রীবরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছেন।  

 

উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মন্জুর আহসান বলেন, ওই বিলের ইজাদারের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত নায়েবকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্যে বলা হয়েছে। এছাড়াও আইনগত সহায়তা প্রদানের জন্যে উপজেলা নিলুফা আক্তার মৎসজীবিদের পৃথক আরেকটি অভিযোগ পত্রে সুপারিশ করেছেন। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি তুলেছেন ওই সমিতির মৎসজীবিসহ স্থানীয়রা। 

 

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর