• বৃহস্পতিবার   ০৬ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২২ ১৪২৭

  • || ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

দৈনিক জামালপুর
১৯১

স্ত্রীর সাথে অভিমান করে ৪৮ বছর বনবাসে ৭১ বছরের বৃদ্ধ!

দৈনিক জামালপুর

প্রকাশিত: ২৮ মে ২০২০  

পৃথিবীর যেখানেই থাকুন না কেন, জীবনসঙ্গী ছাড়া জীবন কাটানো কষ্টকর। তাইতো প্রতিটি মানুষ বিয়ে নামক পবিত্র বন্ধনে আবদ্ধ হন সারাজীবন সুখে থাকার আশায়। স্বামী-স্ত্রী একে অপরের সঙ্গে জীবনের সব সুখ-দুঃখ ভাগ করে নেন। তবে সবাই যে বিবাহিত জীবনে সুখী হয়, তা কিন্তু নয়। অনেকের জীবনেই বিয়ে সুখ বয়ে আনে না। পারিবারিক অশান্তি লেগেই থাকে।

 

ভারতের তামিলনাড়ু রাজ্যে এক অদ্ভুত ঘটনা ঘটেছে। যেখানে স্ত্রীর ওপর রাগ করে ৪৮ বছর বনবাসে আছেন ৭১ বছরের এক বৃদ্ধ! ১৯৬৮ সালে কেন্নাচাপ্পা গৌড়া নামের সেই বৃদ্ধ ঘর ছেড়েছিলেন। এরপর থেকে একা একাকি প্রায় ১৩০ কিলোমিটার দূরে সুলিয়া এলাকার মারগাঞ্জ অভয়ারণ্যে বাস করছেন তিনি।

 

সম্প্রতি ভারতের একটি টিভি চ্যানেলের অনুসন্ধানে উঠে আসে ওই ব্যক্তির বনবাস জীবন কাহিনী। এরপর তাকে নিয়ে সংবাদ মাধ্যমের খবর প্রকাশ হতে থাকে।

 

ভারতের সংবাদমাধ্যম জি নিউজে প্রকাশিত, ২২ বছর বয়সে ১৯৬৭ সালে বিয়ে করেছিলেন কেন্নাচাপ্পা। স্ত্রী উমা ছিলেন অতি রাগী প্রকৃতির নারী। একদিন কথা কাটাকাটির কারণে স্ত্রী পরিবারের অন্য সদস্যদের সামনে তার গায়ে হাত তোলেন। সেদিন রাগে-ক্ষোভে কেন্নাচাপ্পা বনবাসী হন। বাড়ি ছাড়ার সময় তিনি প্রতিজ্ঞা করেন, যতোদিন পর্যন্ত উমা মারা না যাবেন ততোদিন তিনি বাড়ি ফিরবেন না। এরপর হতে বনে বনেই কাটছে ৭১ বছর বয়েসী এই বৃদ্ধের।

 

আরো জানা যায়, যে নারীর জন্য ঘর ছেড়েছেন কেন্নাচাপ্পা সেই নারী তার স্ত্রী এখনো জীবিত। কয়েক বছর আগে স্বামীর সন্ধান পেয়েছিলেন তিনি। তবে জানার পরও স্বামীকে ফিরিয়ে আনতে যাননি তিনি। এমনকি তার একমাত্র ছেলেকেও বাবার কাছে যেতে দেননি উমা।

 

অন্য একটি টিভি চ্যানেল ইন্ডিয়া টাইমসকে কেন্নাচাপ্পা গৌড়া জানান, নারকেল পাতা দিয়ে বানানো একটি ছোট্ট ঘরে বসবাস করেন তিনি। জঙ্গলে কৃষিকাজ করে উৎপন্ন আলু দিয়ে বানানো খাবার খেয়েই কাটে তার জীবন। এভাবেই এতোটি বছর বেঁচে রয়েছেন কেন্নাচাপ্পা!

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর