মঙ্গলবার   ১০ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৬ ১৪২৬   ১২ রবিউস সানি ১৪৪১

দৈনিক জামালপুর
১৩৯৪

স্থানীয় বাজেটে প্র‌তিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য বরাদ্দ রাখার আহব্বান

প্রকাশিত: ২৩ নভেম্বর ২০১৯  

প্রতিবন্ধী নারীদের জাতীয় পরিষদ (এনসিডিডাব্লিউ) এর উদ্যোগে এডিডি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ এর সহযোগিতায় ইউরোপীয়ান ইউনিয়নের অর্থায়নে ২১ নভেম্বর ২০১৯ ইং তারিখে সকাল ১০:৩০ টায় কনফারেন্স রুম, হোটেল ক্যাসপিয়া, ক্যান্টনমেন্ট রোড, রংপুরে সামগ্রিক উন্নয়নে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অন্তর্ভুক্তি ও প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিতকরণ বিষয়ক এ্যাডভোকেসী সভার অনুষ্ঠিত হয়।

এ্যাডভোকেসী সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব আবু ছালেহ মোঃ মুসা জঙ্গী, পরিচালক (উপসচিব), বিভাগীয় সমাজসেবা কার্যালয়, রংপুর। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোঃ মোশাররফ হোসেন, উপ-পরিচালক, সমাজসেবা অধিদপ্তর, রংপুর, কাউছার পারভিন, উপ-পরিচালক, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর, রংপুর, ডাঃ কানিজ সাবিহা, ডেপুটি সিভিল সার্জন, সিভিল সার্জনের কার্যালয়, রংপুর, শাহরিনা দিলরুবা, জেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা, রংপুর, আলমগীর হোসেন কাদেরী, সহকারী পরিচালক, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর, রংপুর ও তাপস কুমার বর্মা, প্রতিবন্ধী বিষয়ক কর্মকর্তা, জেলা প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্র, রংপুর, বায়জিদ মোঃ গোলাম ছাইদেল কাওনাইন ( বায়জিদ বোস্তামী), ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, তারাগঞ্জ, রংপুর ও নিরঞ্জন মহন্ত, ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, মিঠাপুকুর, রংপুর। এছাড়াও প্রকল্প এলাকার ৫ টি উপজেলার সমাজসেবা কর্মকর্তা, ২ টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, ৬ টি ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যানবৃন্দ, এনজিও /সিএসও প্রতিনিধিবৃন্দ, সাংবাদিকবৃন্দ, জেলা ফেডারেশনের নেতৃবৃন্দ ও ডিপিও নেতৃবৃন্দ সভায় অংশগ্রহণ করেন।

সভায় স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন জনাব মোঃ সাইদার রহমান, সভাপতি, রংধনু জেলা প্রতিবন্ধী অধিকার সংস্থা, রংপুর। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জনাব মোঃ হাসানুজ্জামান, ফিল্ড কো-অডিনেটর,

এনসিডিডাব্লিউ। সভায় সভাপতিত্ব করেন রেবেকা আক্তার রিতা, অর্থ সম্পাদক, এনসিডিডাব্লিউ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিচালক, বিভাগীয় সমাজসেবা কার্যালয়, রংপুর বলেন প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের উন্নয়ন নিশ্চিত করতে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সঠিক সংখ্যা নিরুপণ করা প্রয়োজন। স্থানীয় সরকারের ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলার বাজেটে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য অর্থ বরাদ্দ রাখার সুযোগ রয়েছে। বাজেটে বরাদ্দ রেখে তাদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করার উদ্যোগ গ্রহণ করা যেতে পারে। তিনি আরো বলেন ভেজালযুক্ত খাদ্য, দূষিত পরিবেশসহ বিভিন্ন কারণে প্রতিবন্ধী শিশুর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এজন্য প্রতিবন্ধী শিশুর ‍সুরক্ষা ও মায়েদের কর্মমুখী করার জন্য প্রতিটি জেলায় ডে কেয়ার সেন্টার তৈরী করা প্রয়োজন। প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদেরকে কর্মসংস্থানে সম্পৃক্ত করতে পারলে তারাও উন্নয়নের মূলস্রোত ধারায় অবদান রাখতে পারবে। সরকার প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে, কিন্তু সরকারের পাশাপাশি বেসরকারী ভাবে ব্যক্তি ও সংগঠন এগিয়ে আসতে হবে।

 

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর
এই বিভাগের আরো খবর