• শুক্রবার   ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ৯ ১৪২৮

  • || ১৫ সফর ১৪৪৩

দৈনিক জামালপুর

কৃষিতে ২৮ হাজার কোটি টাকা ঋণ দেবে ব্যাংকগুলো

দৈনিক জামালপুর

প্রকাশিত: ৩০ জুলাই ২০২১  

করোনার প্রাদুর্ভাবেও সচল রয়েছে দেশের কৃষি খাতের উৎপাদন। তাই মহামারিতে ঋণ বেশি প্রয়োজন ছিল কৃষকের। এজন্য মহামারি করোনাভাইরাসের আর্থিক সংকট মোকাবিলায় চলতি (২০২১-২২) অর্থবছরে কৃষকদের জন্য ২৮ হাজার ৩৯১ কোটি টাকা ঋণ বরাদ্দ রেখেছে ব্যাংকগুলো। যা গেল অর্থবছরের চেয়ে ৭ দশমিক ৯৮ শতাংশ বেশি। ঋণের সুদের হার ৯ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৮ শতাংশ করা হয়েছে। গত ২০২০-২১ অর্থবছরে ২৬ হাজার ২৯২ কোটি টাকা ঋণ বরাদ্দ ছিল।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) নতুন অর্থবছরের জন্য কৃষি ও পল্লী ঋণ এ নীতিমালা এবং কর্মসূচি প্রণয়ন করেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের কৃষি ঋণ বিভাগ।

 

এ ছাড়া সমবায় ব্যাংকের মাধ্যমে ২৫ কোটি টাকা এবং বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড ১ হাজার ৬২ কোটি টাকা ঋণ বিতরণ করবে। বেসরকারি ব্যাংকগুলোকে মোট ঋণের আড়াই শতাংশ কৃষি খাতে দিতে হবে।

পরিবেশবান্ধব ও টেকসই কৃষি ব্যবস্থা গড়ে তুলে জনসাধারণের খাদ্য নিরাপত্তা ও পুষ্টি নিশ্চিতকরণের ক্ষেত্রে উদ্ভূত সমসাময়িক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা এবং কৃষকদের নিকট কৃষি ঋণ সহজলভ্য করার লক্ষ্যে বর্তমান নীতিমালা ও কর্মসূচিতে বেশ কিছু সময়োপযোগী বিষয় যুক্ত করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

এগুলো হলো: সোনালি মুরগি, মহিষ ও গাড়ল পালনের জন্য ঋণ দেওয়া হবে। একর প্রতি ঋণসীমা কৃষকদের প্রকৃত চাহিদা ও বাস্তবতার নিরিখে ১৫ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি বা হ্রাস করা যাবে। মাছ চাষের ক্ষেত্রে একর প্রতি ঋণ সীমা বৃদ্ধি করা ও ব্যাংককর্তৃক বিতরণকৃত ঋণের তদারকি অধিকতর জোরদার করণের লক্ষ্যে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

রাষ্ট্র মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ও বিশেষায়িত ব্যাংকগুলো ১১ হাজার ৪৫ কোটি টাকা ঋণ লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। গত অর্থবছরে এসব ব্যাংকের ঋণ অঙ্ক একই ছিল। বেসরকারি ও বিদেশি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর ১৭ হাজার ৩৪৬ কোটি টাকা কৃষি ও পল্লী ঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।গত অর্থবছরে এসব ব্যাংকের ঋণ দেয়ার লক্ষ্য ছিল ১৫ হাজার ২৪৭ কোটি টাকা।

২০২০-২১ অর্থবছরে ব্যাংকগুলো ২৫ হাজার ৫১১ কোটি টাকা কৃষি ও পল্লী ঋণ বিতরণ করেছে, যা লক্ষ্যমাত্রা ২৬,২৯২ কোটি টাকার প্রায় ৯৭.০৩ শতাংশ। এ সময় মোট ৩০ লাখ ৫৫ হাজার ১৬৬ জন কৃষক ঋণ পেয়েছেন, যার মধ্যে ব্যাংকগুলোর নিজস্ব নেটওয়ার্ক ও এমএফআই লিংকেজের মাধ্যমে ১৬ লাখ ৫ হাজার ৯৪৭ জন নারী প্রায় ৯ হাজার ২৮৭ কোটি টাকা ঋণ পেয়েছেন।

ওই অর্থবছরে ২২ লাখ ৪৫ হাজার ৫১২ জন ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক চাষি বিভিন্ন ব্যাংক থেকে প্রায় ১৭ হাজার ৬৩৯ কোটি টাকা এবং চর, হাওর প্রভৃতি অনগ্রসর এলাকার ৭,৭৯৬ জন কৃষক প্রায় ৩৩ কোটি ৯৬ লাখ টাকা কৃষি ও পল্লী ঋণ পেয়েছেন।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় কৃষিখাতে চলতি মূলধন সরবরাহের উদ্দেশে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে পাঁচ হাজার কোটি টাকার একটি পুনঅর্থায়ন স্কিম পরিচালিত হচ্ছে। স্কিমের আওতায় ৪ হাজার ২৯৫ কোটি টাকা বিতরণ করা হয়েছে। এ ছাড়াও সুদ-ক্ষতি সুবিধার আওতায় তেল ও মসলা জাতীয় ফসল ও ভুট্টা ছাড়াও শস্য ও ফসল খাতে স্বল্প সুদে (৪ শতাংশ হারে) কৃষকদের ৪ হাজার ৮৮০ কোটি টাকা বিতরণ করা হয়েছে।

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর