• মঙ্গলবার   ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ১২ ১৪২৯

  • || ২৯ সফর ১৪৪৪

দৈনিক জামালপুর
সর্বশেষ:
নৌকা ডুবি দূর্ঘটনায় নিহতদের পরিবারের পাশে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী নন্দীগ্রাম থানার ইন্সপেক্টর তদন্ত আশরাফুল সারিয়াকান্দি বদলি তিন সপ্তাহে এলো ১২৬ কোটি ৫৪ লাখ ডলার রেমিট্যান্স দুর্গাপূজায় নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিতের নির্দেশ আইজিপির ইভিএম নিয়ে ‘ভ্রান্ত’ ধারণা দূর করতে ব্যাপক প্রচারণা চালাবে ইসি প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে তথ্যচিত্র ‘শেখ হাসিনা: আ ট্রু লেজেন্ড’ আসছে ৯ অক্টোবর পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী জামালপুরে আটটি পরিবারের চলাচলের রাস্তায় ঘর তুলল প্রতিবেশী উল্লাপাড়ার কুমার বিল থেকে কৃষকের ভাসমান লাশ উদ্ধার আর্মি এভিয়েশন গ্রুপে যুক্ত হলো কাসা-সি ২৯৫ ডব্লিউ সামরিক বিমান

অক্টোবরেই উৎপাদনে যাচ্ছে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিট

দৈনিক জামালপুর

প্রকাশিত: ২ সেপ্টেম্বর ২০২২  

আগামী অক্টোবরেই বাণিজ্যিক উৎপাদনে যাচ্ছে সর্বাধুনিক প্রযুক্তির রামপাল তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র। ভারত-বাংলাদেশ যৌথ মালিকানার কয়লাভিত্তিক এ প্রকল্পের প্রথম ইউনিটের বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যুক্ত করতে এখন চলছে পরীক্ষামূলক উৎপাদন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, উৎপাদন খরচ কম হওয়ায় এমন বিদ্যুৎকেন্দ্রে অর্থনৈতিক সুফল মিলবে বেশি।

বাগেরহাটের রামপাল। পশুর নদীর তীরে একসময়ের নিচু আর জলাবদ্ধ জমিতে গড়ে উঠেছে সুবিশাল আধুনিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র। ৯১৫ একর জমিতে ৬৬০ মেগাওয়াটের দুইটি ইউনিটে কয়লা থেকে উৎপাদন করা হবে বিদ্যুৎ।

যেখানে স্থাপন করা হয়েছে দেশের সর্বোচ্চ উচ্চতার চিমনি। গভীর সমুদ্র থেকে পশুর নদী হয়ে বিদেশ থেকে উন্নতমানের কয়লা আসে বিশেষ জাহাজে। চারটি শেডে তিন মাসের চাহিদা মেটাতে মজুত করা যাবে ১০ লাখ টন কয়লা।

প্রথমধাপে ইন্দোনেশিয়া থেকে আমদানি করা হয়ছে ৫৫ হাজার টন কয়লা। এছাড়া তরল ও কঠিন বর্জ্য পরিশোধনে আছে ট্রিটমেন্ট প্লান্ট।

প্রথম ইউনিট থেকে ১৫ আগস্ট পরীক্ষামূলকভাবে সঞ্চালন লাইনে প্রায় ৯২ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ লোড করা হয়। এখন নিয়মিত উৎপাদন বাড়িয়ে সক্ষমতা যাচাই করা হচ্ছে।

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রকল্প পরিচালক সুভাষ চন্দ্র পান্ডে বলেন, পরিকল্পনা অনুযায়ী সেপ্টেম্বর থেকে অক্টোবরের মধ্যে রিলায়েবল টেস্ট রান, কমিশানিং অপটিমাইজেশন শেষ করতে হবে। প্রথম ইউনিট থেকে ৬০০ মেগাওয়টা বিদ্যুৎ গ্রিডে দেয়া যাবে।

তিনি আরও জানান, গোপালগঞ্জ থেকে ঢাকা পর্যন্ত পিজিসিবির লাইন তৈরি হয়নি। তাই খুলনা এলাকায় আপাতত ব্যবহার হবে। আগামী বছরের মার্চের মধ্যে দ্বিতীয় ইউনিটকে বাণিজ্যিক উৎপাদনে নেয়ার পরিকল্পনা আছে।

সর্বাধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করায় এ বিদ্যুৎকেন্দ্রে প্রতি ইউনিটের নির্ধারিত খরচ দেশের অন্যান্য কেন্দ্রের তুলনায় কম হবে বলে দাবি করছে কর্তৃপক্ষ।

দেশে যখন প্রায় ২ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুতের ঘাটতি, তখন আসছে রামপালের বিদ্যুৎ। এ কেন্দ্রের মোট ব্যয় ১৬ হাজার কোটি টাকা। দুই দেশের সরকার জোগান দিয়েছে ১৬০০ কোটি করে। বাকি ১২ হাজার ৮শ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছে ভারতের এক্সিম ব্যাংক।

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর