• শনিবার   ৩১ জুলাই ২০২১ ||

  • শ্রাবণ ১৬ ১৪২৮

  • || ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

দৈনিক জামালপুর
সর্বশেষ:
সলপে খেলাধুলার সামগ্রী বিতরণ করলেন চেয়ারম্যান ইঞ্জিঃ শওকাত ওসমান বাংলাদেশে পৌঁছেছে ভারতের তৃতীয় অক্সিজেন এক্সপ্রেস আজ বিকালে আসছে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার দ্বিতীয় চালান রাজিবপুরে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত-২৫ গ্রেফতার-৪ করোনাজয়ী কাজিপুরের এসি ল্যান্ডের আবেঘন স্ট্যাটাস টাঙ্গাইলে র‌্যাবের পৃথক অভিযানে নকল ব্যান্ডরোল ও মাদকসহ গ্রেপ্তার বাসাইলে ১৫ দিনব্যাপী মশক নিধন কর্মসূচি’র উদ্বোধন আশ্রয়ণ প্রকল্পের কোন অনিয়ম মেনে নেবে না সরকার : তথ্য প্রতিমন্ত্রী শোকাবহ আগস্ট: মাদারগঞ্জ উপজেলা শাখার মাসব্যাপী ভার্চুয়াল কর্মসূচি ভালো দাম পাওয়ায় পাট চাষে ঝুঁকছেন নাগরপুরের কৃষকরা

পুলিশের ওপর হামলা মামলায় যুবদলনেতা শিবলীসহ ২ জন গ্রেপ্তার

দৈনিক জামালপুর

প্রকাশিত: ২২ জুলাই ২০২১  

নাশকতার পরিকল্পনা ও পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে জামালপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার (ডিএসএ) সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল ফুয়াদ রেদোয়ান ও শিবলী নোমান ইদ্রিস নামের এক যুবদলনেতাকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে সদর থানা পুলিশ। ১৯ জুলাই ভোররাতে তাদেরকে জামালপুর শহরের বাগানবাড়ি এলাকা থেকে আটক করা হয়। পরে এই দু’জনসহ অজ্ঞাত পরিচয়ের আরও ২০/২৫ জনের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলায় তাদেরকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

গ্রেপ্তার আব্দুল্লাহ আল ফুয়াদ রেদোয়ান জামালপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও ময়মনসিংহ বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক। জেলা বিএনপির বর্তমান কমিটিতে তার নাম না থাকলেও তিনি বিএনপি সমর্থক ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শাহ মো. ওয়ারেছ আলী মামুনের সহোদর বড় ভাই। তার বাসা শহরের কাছারিপাড়ায়। গ্রেপ্তার শিবলী নোমান ইদ্রিস জেলা যুবদলের ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার যুগ্মসাধারণ সম্পাদক। তার বাসা শহরের বাগানবাড়ি এলাকায়।

সদর থানা সূত্র জানায়, ১৯ জুলাই ভোর রাত সাড়ে ৩টার দিকে পুলিশের কাছে খবর আসে যে, জামালপুর শহরের বাগানবাড়ি এলাকায় যুবদলনেতা শিবলী নোমান ইদ্রিসের বাসায় বিএনপি ও জামায়াতের কিছু লোকজন নাশকতা সৃষ্টির উদ্দেশ্যে জমায়েত হয়ে গোপন বৈঠক করছেন। এ সময় সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. খায়রুল ইসলাম পুলিশ ফোর্স নিয়ে ওই বাসায় গেলে সেখানে উপস্থিত আব্দুল্লাহ আল ফুয়াদ রেদোয়ান ও শিবলী নোমান ইদ্রিসসহ অজ্ঞাত আরও ২০-২৫ জন লোক পুলিশের ওপর হামলা করে। এ অবস্থায় রেদোয়ান ও শিবলীকে আটক করতে সক্ষম হয় পুলিশ। হামলাকারীদের লাঠিসোঠার আঘাতে এসআই মো. সিরাজুল ইসলামসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত ও লাঞ্ছিত হন। পুলিশের ওপর হামলার খবর পেয়ে সদর থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছুলে হামলাকারী অন্যান্যরা পালিয়ে যান।

এ ঘটনায় সদর থানার এসআই মো. খায়রুল ইসলাম বাদী হয়ে শিবলী ও রেদোয়ানসহ অজ্ঞাত ২০-২৫ জনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। তাদের বিরুদ্ধে নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড সংঘটনের উদ্দেশ্যে জমায়েত ও বেআইনি জনতাবদ্ধে আইন-শৃংখলা বাহিনীর ওপর হামলা, মারধর, সরকারি কাজে বাঁধা ও সরকারি সম্পত্তি ক্ষয়ক্ষতির চেষ্টার অভিযোগ আনা হয়েছে।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রেজাউল ইসলাম খান এ প্রতিবেদককে বলেন, গ্রেপ্তার শিবলী ও রেদোয়ানকে ১৯ জুলাই রাতে মুখ্যবিচারিক হাকিমের আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর