• শনিবার   ২১ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৬ ১৪২৯

  • || ১৮ শাওয়াল ১৪৪৩

দৈনিক জামালপুর

আ.লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম কিনলেন জয়নাল আবেদীন

দৈনিক জামালপুর

প্রকাশিত: ৫ মে ২০২২  

জামালপুর জেলার ইসলামপুর উপজেলার ৪ নং সাপধরী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের দলীয় ফরম কিনলেন বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ জয়নাল আবেদীন বি.এসসি। 

বৃহস্পতিবার (০৫ মে) বিকালে জামালপুর দলীয় অফিস থেকে নৌকা মার্কার ফরম সংগ্রহ করেন তিনি ও তার সমর্থকরা। 
 
৪ নং সাপধরী ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান সফল চেয়ারম্যান তিনি৷ সাপধরী ইউনিয়নের অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করতে, সস্ত্রাস ও মাদক মুক্ত, ডিজিটাল ইউনিয়ন পরিষদ গড়ে তোলার জন্য এবারও নৌকার প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান সফল চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন বিএসসি। জনসেবার মাধ্যমে একজন সফল জনবান্ধব চেয়ারম্যান হিসেবে এলাকায় অধিষ্ঠিত।

ইউনিয়নবাসীর নয়নের মনিকোঠায় শক্ত স্থান করেছেন তিনি। এলাকার সার্বিক উন্নয়নে নিজেকে উৎসর্গ করতে চান জনবান্ধব ও বিচক্ষণ এই চেয়ারম্যান। দলীয় নৌকা মার্কা মনোনয়ন ফরম কেনা শেষে তিনি বলেন, পুনরায় নির্বাচিত হতে পারলে অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করা হবে। জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত মানুষের সেবক হিসেবে পাশে থেকে কাজ করতে চাই। ইতোমধ্যে ইউনিয়নবাসীর সার্বিক সহযোগীতার মাধ্যমে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা সকল উন্নয়নমূলক কাজ করে যাচ্ছি। 

তিনি বলেন, আমি বিগত ৫ বছরে মাননীয় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব ফরিদুল হক খান দুলাল এমপি মহোদয়ের দিকনির্দেশনায় সাপধরী ইউনিয়নের রাস্তা-ঘাট হাটবাজার এর  উন্নয়ন এবং নিরপেক্ষ বিচার শালিস করেছি। আমার এই দীর্ঘ ৫ বছরের নেতৃত্বে ইউনিয়নে বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধীভাতা সহ অন্যান্য সকল প্রকারের ত্রাণ বঞ্চিত মানুষের হাতে হাতে পৌছে দিয়েছি ও আমার ইউনিয়ন সিংহভাগ বিদ্যুতায়ন এলাকা হিসেবে চিহিৃত হয়েছে।
 
আমার ইউনিয়নের গ্রামের বিভিন্ন এলাকায় নতুন করে কাঁচা (মাটি) রাস্তা নির্মাণ, ছোট-বড় কাঁচা রাস্তা,ব্রিজ কালভার্ট, আর্সেনিকমুক্ত নলকূপ, মসজিদ, মাদরাসা, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, স্কুল ও হাট-বাজারের ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজ করেছি।

করোনা মহামারী দুর্যোগ মোকাবেলায় আমি আমার নিজ ইউনিয়নের প্রতিটা মানুষের পাশে থেকে খাদ্য সহায়তা সহ বিভিন্ন সামাজিক অবকাঠামো উন্নয়ন করেছি, করোনাকালীন এই সময়ে সরকারি সহায়তা প্রদানসহ আমি ব্যক্তিগত অর্থায়নে, মাস্ক বিতরণ, হাত ধৌয়ার জন্য হ্যান্ড সেনেটারী এবং সচেতনামূলক কর্মকান্ড পরিচালনাসহ নিজস্ব অর্থায়নে কর্মহীন মানুষের মাঝে নগদ টাকা ও খাদ্য সহায়তা দিয়েছি। সবাইকে আমি এক চোখে দেখেছি বলে তিনি জানান।

বিগত ৫ বছর ইউনিয়নের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে তিনি আর ও বলেন, আমাদের ইউনিয়নটি একটি আদর্শ ইউনিয়ন। ইউনিয়নে নেই কোনো বাল্যবিবাহ, ইভটিজিং এমনকি জঙ্গীবাদ। সময়ে ও দূর্যোগের কারনে পিছিয়ে গেলেও এলাকার উন্নায়ন চোখে পরার মত,বিভিন্ন ওয়ার্ড ও পাশ্ববর্তী এলাকার সাথে সংযোগ স্থাপনের জন্য কিছু ব্রিজ এর কাজ শেষ ও কিছু চলমান রয়েছে। এছাড়াও স্কুল, কালভার্ট, পুল, রাস্তা মেরামত ও নতুন করে দেওয়া হয়েছে, যোগাযোগ ব্যাবস্থা আরো উন্নত করার লক্ষ্যে তৃনমুল থেকে আগে কাজ শুরু” করেছি। তাছাড়াও সরকার কর্তৃক সকল প্রেরিত সুবিধা জনগনের দোরগোড়ায় পৌছেদিতে নিরলস পরিশ্রমে কোন ঘাটতি রাখিনি।
 
আমি জন্মলগ্ন থেকে আওয়ামী পরিবারের সন্তান।আমার বাবা ছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি,আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন,তার ধারাবাহিকতায় আমি ছাত্র রাজনীতি যুব রাজনীতি করে ১৯৯৫ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করে আসছি। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের একজন একনিষ্ঠ ও নিবেদিত কর্মী হিসবে কাজ করে যাচ্ছি। আমি আমার ইউনিয়ন বাসীর যে অসমাপ্ত কাজ গুলো আছে তা সমাপ্ত করতে চাই।

তিনি আরো জানান ,আমি নির্বাচিত হওয়ার পূর্বে সাপধরী  ইউনিয়ন ছিল একটি অবহেলিত ইউনিয়ন আমি ২০১৭ সালে নৌকা মার্কা পেয়ে প্রথম বারের মত ৯টি ওয়ার্ডে জনগনের ভোটে বিজয়ী হয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের নেতৃত্ব সেবা, উন্নয়ন, সুশাসন ইউনিয়ন বাসীকে উপহার দিয়েছি।আমি এই পাঁচ বছরে কি কি উন্নায়ন মূলক কাজ করেছি তার বিচার বিবেচনা করবে আমার ইউনিয়ন বাসী। আমি শতভাগ আশাবাদী। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা, বিশ্ব-মানবতার মা, সফল রাষ্ট্রনায়ক, দেশরত্ন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবারও আমাকে দ্বিতীয় বারের মত আওয়ামীলীগ দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দিয়ে সাপধরী বাসীর সেবা করার সুযোগ দিবেন।

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর