• শনিবার   ৩১ জুলাই ২০২১ ||

  • শ্রাবণ ১৬ ১৪২৮

  • || ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

দৈনিক জামালপুর

ভিপি নূর বলছেন ক্ষমা চেয়েছে বিএনপি, জাফরুল্লাহ বলছেন ‘না’

দৈনিক জামালপুর

প্রকাশিত: ১৪ জুলাই ২০২১  

তারেক রহমান ও বিএনপিকে নিয়ে কথা বলা না থামালে জাফরুল্লাহ চৌধুরীর কিছু হয়ে গেলে ছাত্রদল দায়ী থাকবে না- সংগঠনের সহসভাপতির এমন প্রকাশ্য হুমকি দেয়ার প্রায় তিন সপ্তাহেও ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নূরের কোনো প্রতিক্রিয়া নেই।

গত কয়েক বছরে জাফরুল্লাহ ও নূর বেশ কাছাকাছি এসেছেন এবং আলোচিত সব বিষয়ে তারা একই সুরে কথা বলেন। মঙ্গলবার জাফরুল্লাহর প্রতিষ্ঠান গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে দুজন একসঙ্গে এক অনুষ্ঠানেও বক্তব্য রাখেন।

নূর নিয়মিত ফেসবুক লাইভে এসে কথা বলেন। রাজনৈতিক প্রায় সব বিষয়েই তিনি তার মতো করে ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ করেন। আর বলাই বাহুল্য, সরকারের কট্টর সমালোচক হয়ে উঠেছেন সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের আন্দোলনে নেমে আলোচিত হয়ে ওঠা ছাত্রলীগের সাবেক এই নেতা।

জাফরুল্লাহকে বলতে গেলে প্রকাশ্যে হুমকি দেয়া হয়েছে। আপনি এই বিষয়টাতে চুপ কেন? এমন প্রশ্নে নূর বলেন, ‘ছাত্রদল থেকে শুরু করে বিএনপির বিভিন্ন ঊর্ধ্বতন জায়গা থেকে এটার জন্য দুঃখ প্রকাশ করা হয়েছে এবং জাফরুল্লাহ চৌধুরীর কাছে বিভিন্ন অভ্যন্তরীণভাবে ক্ষমাও চাওয়া হয়েছে বলে যেটা আমি জানি।

‘আমি যদ্দুর জানি, বিএনপির বিভিন্ন জায়গা থেকে এটার জন্য ওনার কাছে ক্ষমা চেয়েছে বা দুঃখ প্রকাশ করেছে বিষয়টির জন্য।’

তবে ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল বলেছেন, তাদের সহসভাপতি ওমর ফারুক কাউসার যা বলেছেন, সেটি তারা সমর্থন করেন।

তিনি বলেন, ‘জাফরুল্লাহ চৌধুরী একজন সিনিয়র সিটিজেন। মুক্তিযুদ্ধে ওনার একটি ভূমিকা রয়েছে। একই সঙ্গে তারেক জিয়া এই মুহূর্তে আমাদের সাংগঠনিক অভিভাবক। দলকে নিয়ে, অভিভাবককে নিয়ে কথা তোলায় নিজের আবেগ ধরে রাখতে না পেরে সে (কাউসার) তার কথা বলেছে মাত্র। প্রতিবাদ করেছে। এ ধরনের প্রতিবাদকে আমরা সমর্থন করি। ভবিষ্যতে ঘটলেও আমরা তা-ই করব। একই সঙ্গে জাফরুল্লাহ চৌধুরীর মতো একজন বুজুর্গ ব্যক্তির থেকে এ রকম আচরণ আমরা আশা করি না।’

ছাত্রদলের এই অবস্থানকে সমর্থন করে বিবৃতি দিয়েছে বিএনপির সহযোগী সংগঠন স্বেচ্ছাসেবক দল।

আর জাফরুল্লাহ চৌধুরী নিজে জানিয়েছেন, সেদিনের ঘটনা নিয়ে বিএনপির কেউ তাকে ফোন করেননি। আর বিএনপির এক সভায় দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় তাকে ইঙ্গিত করে যে বক্তব্য রেখেছেন, তাতে তিনি চটেছেন। বলেছেন, বিএনপির নেতারা গোঁয়ার।

জাফরুল্লাহ বলেছেন, বিএনপির কেউ সেদিনের ঘটনায় তাকে ফোন করেননি, তাহলে আপনি কীভাবে জেনেছেন যে, তারা ক্ষমা চেয়েছেন? এমন প্রশ্নে নূর কথা পাল্টে বলেন, ‘যেহেতু তিনি (জাফরুল্লাহ) বিএনপির অনেকের সঙ্গেই বেশ ভালোভাবে সম্পৃক্ত আছেন, সে ক্ষেত্রে আমারও মনে হয় না বিষয়টা মিডিয়ায় আসুক উনি চাচ্ছেন। অনেক বিষয় আছে যার জন্য অনেকেই আছেন মিডিয়ায় আসুক চান। আমাদের বলেছেন এই নিয়ে বেশি কিছু না বলতে।’

ঘটনাটি ছাত্রদল না ঘটিয়ে অন্য কোনো সংগঠন যদি করত তাহলে কি চুপ থাকতেন? এমন প্রশ্নে নূর বলেন, ‘জাফরুল্লাহ চৌধুরী একটা কথা বলেছেন ছাত্রদলের নেতার যদি না পছন্দ হয়, তবে তিনি বিনয়ের সঙ্গে বলতে পারেন যে, স্যার আপনার এই কথাটা আমরা ভালোভাবে নিতে পারি নাই,আমাদের নেতা সম্পর্কে এ ধরনের কথা বইলেন না আমরা কষ্ট পাই। এ ধরনের একটা কথা বলতে পারত। কিন্তু সেটা না করে সেই ছেলেটির (ছাত্রদল নেতা কাউসার) আচরণ খুবই দুঃখজনক।’

তিনি বলেন, ‘আমি ডাকসুর সাবেক ভিপি। ছাত্রদলের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেছি, ছাত্রলীগের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলে থাকি। আমি তখন ছাত্রদলের সভাপতি, সেক্রেটারির প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলাম, সোশ্যাল মিডিয়ায় একটা লেখায় যে, জাফরুল্লাহ চৌধুরীর কাছে তাদের ক্ষমা চাওয়া উচিত।’

তিনি বলেন, ‘বুদ্ধিজীবী আছেন কয়জন এই সময়ে দেশের জন্য কথা বলে? এই এক জাফরুল্লাহ চৌধুরী। আসলে এই বয়সে এই মানুষটার তো কিছু পাওয়ার নেই। তো এই মানুষটারে আমরা যদি আবার হার্ট করে কথা বলি, তাহলে এই বয়সে সে তো কথা বলার মানসিক শক্তিটাকে হারাবে। সেই জায়গা থেকে আসলে আমরা প্রতিবাদ জানিয়েছি’- অনেকটা নরম সুরে ছাত্রদলকে উদ্দেশ করে বলেন নূর।

প্রেস ক্লাবে সেদিন যা ঘটেছিল

গত ২৬ জুন জাতীয় প্রেস ক্লাবের ওই সেমিনারের আয়োজক ছিল এডুকেশন রিফর্ম ইনিশিয়েটিভ (ইআরআই) নামে বিএনপি সমর্থক একটি সংগঠন। বিষয় ছিল ‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী: শিক্ষায় প্রত্যাশা ও প্রাপ্তি এবং করোনাকালীন শিক্ষা বাজেট: ২০২১-২০২২’।

আলোচনার একপর্যায়ে বিএনপি, তারেক রহমান, খালেদা জিয়ার প্রসঙ্গে কথা বলতে শুরু করেন জাফরুল্লাহ। মন্তব্য করেন, ‘বিএনপি চলে লন্ডন থেকে আসা ওহি দিয়ে।’

তারেক রহমানকে দুই বছর চুপচাপ বসে লন্ডনে পড়ালেখার পরামর্শও দেন জাফরুল্লাহ।

এ সময় শ্রোতাদের আসনে থাকা ছাত্রদল নেতা কাউসার তাকে থামিয়ে দিয়ে বলেন, ‘ওস্তাদ স্লামালাইকুম।’

মুহূর্তে সেমিনার কক্ষে উপস্থিত সবাই চমকে যান। সেই ব্যক্তি বলতে থাকেন, ‘আপনি বিএনপির কী? আপনি কে যে আপনার কথা শুনতে হবে? আপনি আমাদের নিয়া উল্টাপাল্টা কথা বলেন?’

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘আপনি আগে কথা তো শোনেন।’

তখন ছাত্রদল নেতার সঙ্গে থাকা একজন বলেন, ‘আপনি জয়রে (প্রধানমন্ত্রীর ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়) নিয়া বলেন।’

জাফরুল্লাহ বলেন, ‘আপনাদের ভালোর জন্য বলি। আপনারা আপনাদের ভালো বোঝেন না।’

ছাত্রদল নেতা কাউসার বলেন, ‘না না, আমরা অবশ্যই বুঝি, আমরা আমাদেরটা বুঝি, আপনি আপনারটা বোঝেন। আপনি আমাদের নেতাকে নিয়ে কখনও এভাবে কথা বলবেন না। আপনি আপনাকে নিয়ে কথা বলেন, যদি বলেন, পরবর্তী সময়ে কিছু হলে কিন্তু আমরা জানি না।’

নূর বলছেন ক্ষমা চেয়েছে বিএনপি, জাফরুল্লাহ বলছেন ‘না’

জাফরুল্লাহ বলেন, ‘কোনো কিছু হবে না, আপনারা দায়ী হবেন কেন?’

কাউসার বলেন, ‘ধন্যবাদ।’

এই কথোপকথনের পর কাউসার তার সঙ্গীদের নিয়ে সেমিনার কক্ষ ত্যাগ করেন।

ছাত্রদল নেতার পর বিএনপির সভায় জাফরুল্লাহকে আক্রমণ

গত ৩ জুলাই বিএনপির এক অনলাইন আলোচনায় জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে আক্রমণ করে কথা বলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতার নাম উল্লেখ না করে তিনি বলেন, ‘আজকে পত্রপত্রিকায় কিছু সুধীজন আমাদের মাঝে মাঝে কিছু কিছু উপদেশ দিয়ে থাকেন, আমাদের নেতৃত্ব নিয়ে কথা বলতে থাকেন। তাদের সবিনয়ে বলব যে, এই কথাগুলো প্রকারান্তরে ফ্যাসিবাদকে উৎসাহিত করে, যারা ক্ষমতায় আছে তাদের ক্ষমতায় থাকার পথটাকে প্রশস্ত করে।’

‘জনগণকে বিভ্রান্ত না করতে’ জাফরুল্লাহর প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের নেতৃত্ব নিয়ে কোনো সমস্যা নেই। সমস্যা গণতন্ত্রের, সমস্যা ফ্যাসিজমের, সমস্যা আইনের শাসনের, সমস্যাটা হলো জাস্টিস নাই।

‘আমাদের নেতৃত্ব কিন্তু পদে পদে পরীক্ষিত, পদে পদে উত্তীর্ণ; শত নির্যাতন-অত্যাচারের কাছে বেগম খালেদা জিয়া মাথা নত করেননি; যেমনি জিয়াউর রহমান পাকিস্তানিদের কাছে মাথা নত করেননি। তিনি বুক টান করে একটি দেশ উপহার দিয়েছেন, তেমনি আমাদের নেতৃত্বও পরীক্ষিত।'

সেদিনের সেই ঘটনার পর জাফরুল্লাহকে বিএনপিপন্থিদের কোনো অনলাইন সভায় আর ডাকা হয়নি। আর জাফরুল্লাহ চৌধুরীও বিএনপিকে নিয়ে আর একটি কথাও বলেননি।

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর