• রোববার   ২৪ অক্টোবর ২০২১ ||

  • কার্তিক ৯ ১৪২৮

  • || ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

দৈনিক জামালপুর

আমদানির পালে হাওয়া

দৈনিক জামালপুর

প্রকাশিত: ৬ অক্টোবর ২০২১  

করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে হাওয়া লেগেছে আমদানির পালে। এতে বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভে পড়েছে টান।

আমদানি বাড়াকে দেশের অর্থনীতির জন্য মঙ্গল বলছেন অর্থনীতিবিদ ও ব্যবসায়ী নেতারা।

বাংলাদেশ ব্যাংক সোমবার বিদেশি লেনদেনের চলতি হিসাবের ভারসাম্যের হালনাগাদ যে তথ্য প্রকাশ করেছে তাতে দেখা যায়, গত আগস্টে ৬০৯ কোটি ১০ লাখ ডলারের পণ্য আমদানি করেছে বাংলাদেশ। জুলাইয়ে এ খাতে খরচ হয়েছিল ৪৭৫ কোটি ৭০ লাখ ডলার।

সব মিলিয়ে চলতি অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে (জুলাই-আগস্ট) এক হাজার ৮৪ কোটি ৪০ লাখ (১০.৮৫ বিলিয়ন) ডলারের বিভিন্ন ধরনের পণ্য আমদানি হয়েছে। এই অংক গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ৪৬ শতাংশ বেশি।

২০২০-২১ অর্থবছরের ওই দুই মাসে ৭৪৩ কোটি ২০ লাখ ডলারের পণ্য আমদানি হয়েছিল।

চলতি অর্থবছরের জুলাই-আগস্ট সময়ে বিভিন্ন ধরণের পণ্য রপ্তানি করে ৬৭৩ কোটি ২০ লাখ (৬.৭৩ বিলিয়ন) ডলার আয় করেছে বাংলাদেশ। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে চেয়ে দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ কম।

এ হিসাবে ওই দুই মাসে পণ্য বাণিজ্যে সার্বিক ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৪১১ কোটি ৬০ লাখ (৪.১৫ বিলিয়ন) ডলার; যা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ৬ গুণ বেশি।

তবে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) সোমবার রপ্তানি আয়ের হালনাগাদের যে তথ্য প্রকাশ করেছে তাতে দেখা যায়, সেপ্টেম্বরে রপ্তানি আয়ে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৩৮ শতাংশ।

এই ধারা অব্যাহত থাকলে গত অর্থবছরের মত এবারও বড় বাণিজ্য ঘাটতি নিয়ে অর্থবছর শেষ হবে বলে মনে করছেন বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএসস) গবেষক ও রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণী ব্যাংকের চেয়ারম্যান জায়েদ বখত।

তিনি বলেন, ‘আমদানি বাড়া মানে বিনিয়োগ বাড়া। বিনিয়োগ বাড়া মানে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হওয়া। সামগ্রিকভাবে অর্থনীতিতে গতি সঞ্চার হওয়া।’

করোনা মহামারির কারণে আমদানি কমে যাওয়ায় গত অর্থবছরের প্রথমার্ধে দেশের বাণিজ্য ঘাটতি সহনীয় পর্যায়ে ছিল। কিন্তু রপ্তানি বাণিজ্যের প্রধান বাজার ইউরোপ-আমেরিকাসহ অন্যান্য দেশে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করায় দ্বিতীয়ার্ধে এসে আমদানি বাড়তে শুরু করে।

শেষ পর্যন্ত অতীতের সব রেকর্ড ছাপিয়ে পণ্য বাণিজ্যে প্রায় ২৩ বিলিয়ন (২ হাজার ৩০০ কোটি) ডলারের ঘাটতি নিয়ে ২০২০-২১ অর্থবছর শেষ হয়। ওই অর্থবছরের শেষের কয়েক মাসে আমদানিতে উল্লম্ফনের কারণে অর্থনীতির অন্যতম প্রধান দুই সূচক আমদানি-রপ্তানির ব্যবধান চূড়ায় ওঠে।

জায়েদ বখত বলেন, ‘গত দেড় বছর কোভিড-১৯ মহামারির মধ্যেই অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড পরিচালিত হচ্ছে। প্রথমদিকে আমদানি কমলেও পরে বেড়েছে। এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসছে। তাই আমদানি বাড়ছে। এটা অর্থনীতির জন্য ভালো।

‘পদ্মা সেতু, বঙ্গবন্ধু টানেল, মেট্রোরেলসহ বড় বড় প্রকল্পের কাজ মহামারির মধ্যেও এগিয়ে যাচ্ছে। এ সব প্রকল্পের জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম আমদানিতে মোটা অংকের অর্থ ব্যয় হচ্ছে। এ ছাড়া বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেল, খাদ্যসহ অন্যান্য পণ্যের দামও বেড়েছে।’

এসব কারণেই গত অর্থবছরে আমদানি খাতে খরচ প্রথমবারের মতো ৬৫ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে বলে মনে করছেন জায়েদ বখত।

গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘আমদানি যেটা বাড়ছে, তা যদি বিনিয়োগে না আসে তবে তা চিন্তার বিষয়।

‘আশার কথা হচ্ছে পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে আগামী বছর থেকেই যান চলাচল করবে। মেট্টোরেলও পুরোদমে চালু হবে। কর্ণফুলী টানেলের নির্মাণ কাজও শেষ হবে। এই তিনটি বড় প্রকল্প বাংলাদেশের অগ্রযাত্রায় ভিন্নমাত্রা যোগ করবে।

‘সে পরিস্থিতিতে ২০২৩ সাল থেকে অন্য বাংলাদেশ পাবে দেশবাসী। আর এসব উন্নয়ন যজ্ঞকে কেন্দ্র করেই বিনিয়োগের ছক কষছেন উদ্যোক্তারা। সে সব পরিকল্পনা বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় পণ্য সরঞ্জাম আমদানি করছেন তারা। এতেই বাড়ছে আমদানি।’

তিনি বলেন, ‘স্বস্তির জায়গা হচ্ছে আমাদের রিজার্ভ যথেষ্ট আছে। আমদানি বাড়লেও সমস্যা নেই। রিজার্ভ থেকে বিদেশি মুদ্রা খরচ করতে সমস্যা হচ্ছে না।’

রপ্তানি আয়ের প্রধান খাত তৈরি পোশাক শিল্প মালিকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, ‘আমাদের রপ্তানির প্রধান বাজার ইউরোপ-আমেরিকায় করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে এসেছে। মানুষ আগের মতো পোশাক কিনছে। সে কারণে প্রচুর চাহিদা পাওয়া যাচ্ছে। আমাদের এখানেও করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে। দেশের অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়িয়েছে। এতে রপ্তানিসহ অন্যান্য খাতের প্রয়োজনীয় কাঁচামাল, ক্যাপিটাল মেশিনারিসহ অন্যান্য পণ্যের আমদানি বাড়ছে। তার প্রভাব পড়েছে সামগ্রিক আমদানিতে।’

সেবা বাণিজ্যে ঘাটতি বাড়ছে

জুলাই-আগস্ট সময়ে সেবা খাতের বাণিজ্য ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৪৩ কোটি ৩০ লাখ ডলার। গত বছরের একই সময়ে এই ঘাটতি ছিল ২৫ কোটি ৫০ লাখ ডলার।

মূলত বিমা, ভ্রমণ ইত্যাদি খাতের আয়-ব্যয় হিসাব করে সেবা খাতের বাণিজ্য ঘাটতি পরিমাপ করা হয়।

লেনদেন ভারসাম্যে ঘাটতি

আমদানি বাড়ায় বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাবের ভারসাম্যে (ব্যালান্স অব পেমেন্ট) ঘাটতিতে পড়েছে বাংলাদেশ। জুলাই-আগস্ট সময়ে এই ঘাটতির পরিমাণ হয়েছে ১২৪ কোটি ৩০ লাখ ডলার। অথচ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে ৩৪ কোটি ৫০ লাখ ডলারের উদ্বৃত্ত নিয়ে অর্থবছর শুরু হয়েছিল।

গত বছরের জুলাই-আগস্ট সময়ে উদ্বৃত্ত ছিল ৩২২ কোটি ৮০ লাখ ডলার।

অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ এই সূচকে প্রায় ৪ বিলিয়ন ডলারের বড় ঘাটতি নিয়ে শেষ হয়েছিল ২০২০-২১ অর্থবছর। নয় মাস পর্যন্ত (জুলাই-মার্চ) এই সূচক উদ্বৃত্ত ছিল। কিন্তু এপ্রিল থেকে ঘাটতি (ঋণাত্মক) দেখা দেয়।

নিয়মিত আমদানি-রপ্তানিসহ অন্যান্য আয়-ব্যয় চলতি হিসাবের অন্তর্ভুক্ত। এই হিসাব উদ্বৃত্ত থাকার অর্থ হলো নিয়মিত লেনদেনে রাষ্ট্রকে কোনো ঋণ করতে হচ্ছে না।

কমেছে রেমিট্যান্স

মহামারির মধ্যেও গত ২০২০-২১ অর্থবছরে ২ হাজার ৪৭৭ কোটি ৮০ লাখ (২৪.৭৮ বিলিয়ন) ডলারের রেকর্ড পরিমাণ রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। আগের বছর পাঠিয়েছিলেন ১ হাজার ৮২০ কোটি ৫০ লাখ ডলার। প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ৩৬ দশমিক ১১ শতাংশ। অর্থনীতির সূচকগুলোর মধ্যে সবচেয়ে ভালো অবস্থায় ছিল এই সূচক।

কিন্তু ২০২১-২২ অর্থবছরে জোয়ারে ভাটা পড়েছে। অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে (জুলাই-আগস্ট) ৩৬৮ কোটি ২০ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছে। গত বছরের এই দুই মাসে এসেছিল ৪৫৬ কোটি ২০ লাখ ডলার।

এ হিসাবে এই দুই মাসে রেমিট্যান্স প্রবাহ কমেছে ১৯ দশমিক ৩০ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংক রোববার সেপ্টেম্বর মাসের রেমিট্যান্সের তথ্যও প্রকাশ করেছে। এতে দেখা যায়, সেপ্টেম্বরে ১৭২ কোটি ৬০ লাখ ডলার পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। গত বছরের সেপ্টেম্বরে যা ছিল ২১৫ কোটি ১০ লাখ ডলার।

সামগ্রিক লেনদেন ভারসাম্য

জুলাই-আগস্ট সময়ে সামগ্রিক লেনদেন ভারসাম্যে উদ্বৃত্তের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২২ কোটি ১০ লাখ ডলার। গত বছরের একই সময়ে এই উদ্বৃত্ত ছিল অনেক বেশি; ২৪৭ কোটি ডলার।

২০২০-২১ অর্থবছর শেষে এই উদ্বৃত্তের পরিমাণ ছিল ৯২৭ কোটি ৪০ লাখ (৯.২৭ বিলিয়ন) ডলার। তার আগের বছরে (২০১৯-২০) ছিল ৩১৬ কোটি ৯০ লাখ ডলার।

আর্থিক হিসাবে ঘাটতি

গত অর্থবছরের জুলাই-আগস্ট সময়ে আর্থিক হিসাবে ৩২২ কোটি ৮০ লাখ ডলারের উদ্বৃত্ত নিয়ে অর্থবছর শুরু হয়েছিল। শেষ হয়েছিল ১ হাজার ৩০৮ কোটি ডলারের বিশাল উদ্বৃত্ত নিয়ে।

এবার অবশ্য সেই ইতিবাচক ধারা নেই। ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে (জুলাই-আগস্ট) আর্থিক হিসাবে ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১২৪ কোটি ৩০ লাখ ডলার।

রিজার্ভ ৪৬.২ বিলিয়ন ডলার

সোমবার দিন শেষে রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ৪৬.২ বিলিয়ন ডলার। গত ২৪ আগস্ট অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে রিজার্ভ ৪৮ বিলিয়ন ডলারের মাইলফলক অতিক্রম করেছিল।

আমদানি বাড়ায় সে রিজার্ভ কমে ৪৬.২ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে।

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর