• শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ৯ ১৪৩০

  • || ১১ শা'বান ১৪৪৫

দৈনিক জামালপুর

সঞ্চয়কারীদের ঘরে ঊর্ধ্বমুখী সুদহারের সুফল

দৈনিক জামালপুর

প্রকাশিত: ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে ধারাবাহিকভাবে সংকোচনমূলক মুদ্রানীতির পথে হাঁটছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এই নীতির প্রভাবে ব্যাংক ঋণের পাশাপাশি নীতি সুদহারও বাড়ছে। ফলে ব্যাংকগুলোর তারল্য প্রবাহে বড় ধরনের চাপ তৈরি হয়েছে। বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে বাধ্য হয়েই আমানতের সুদহার বাড়াতে হচ্ছে। সব মিলিয়ে এর সুফল পাচ্ছেন ব্যাংকে আমানত রাখা সঞ্চয়কারীরা। ব্যাংকাররা বলছেন, ঋণের সুদহার বেড়ে যাওয়ায় আমানতের সুদহার অব্যাহতভাবে বাড়ছে। আমানতকারীদের সর্বোচ্চ সুবিধা দিতে আগামীতে এই হার আরও বাড়বে বলে জানিয়েছেন তারা। অর্থনীতিবিদরা বলছেন, এটা অবশ্যই একটা ইতিবাচক দিক। তবে এটা আরও বেশি হারে করা উচিত। পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর কালবেলাকে বলেন, ‘এই সুদহার আরও বাড়ানো দরকার। তাহলে আরও তাড়াতাড়ি মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হতো।’ তিনি বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে আমাদের তারল্য সংকট ইচ্ছে করেই বাড়াতে হবে, যাতে ডলারের দাম আর না বাড়ে। সেই সঙ্গে ঋণ এবং আমানতের সুদহার বাড়িয়ে টাকাকে আরও বেশি আকর্ষণীয় করে তুলতে হবে। এতে দুদিক থেকেই সুফল বয়ে আনবে। একদিকে ডলারের দাম কমে আসবে, অন্যদিকে আমানতকারীরাও বেশি সুবিধা পাবেন। ফলে তারা আবার ব্যাংকমুখী হবেন। সেই সঙ্গে মূল্যস্ফীতিও কমে আসবে। জানা গেছে, ঋণের সুদহারের সীমা তুলে দেওয়ার পর থেকেই বাড়ছে আমানতের সুদহার। পাশাপাশি নীতি সুদহার বাড়ায় এই হার আরও বাড়ছে, যার সুফল পাচ্ছেন ব্যাংকে আমানত রাখা সঞ্চয়কারীরা। গত জুনে ঋণের সুদের হারের সীমা তুলে নেওয়া পর থেকেই সব ধরনের আমানতের সুদের হার বাড়তে থাকে। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, গত জুনে আমানতের গড় সুদের হার ছিল ৪ দশমিক ৩৮ শতাংশ। ওই সময় ঋণের গড় সুদহার ছিল ৭ দশমিক ৩১ শতাংশ। গত সেপ্টেম্বরে আমানতের সুদহার বেড়ে হয়েছে ৪ দশমিক ৫২ শতাংশ আর ঋণের সুদহার হয়েছে ৭ দশমিক ৮৩ শতাংশ। আর সবশেষ প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত অক্টোবরে এই হার আরও বেড়ে হয়েছে ৪ দশমিক ৫৫ এবং ৭ দশমিক ৮৯ শতাংশ। তবে জানুয়ারি মাসের প্রতিবেদন এখনো প্রকাশিত না হলেও জানা গেছে এ সময়ে এই আমানত ও ঋণের সুদহার আরও অনেক বেড়েছে। তারল্য সংকটের কারণে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো কলমানি মার্কেট থেকেও উচ্চ সুদে ধার করে দৈনন্দিন কার্যক্রম পরিচালনা করছে। সেখানে সুদের হার বেড়ে যাওয়াও আমানতের সুদের হার বাড়ার অন্যতম কারণ। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুসারে, গতকাল মঙ্গলবার কলমানির গড় সুদের হার ছিল ৮ দশমিক ৩৬ শতাংশ। ১৪ দিন মেয়াদি কলমানির সুদের হার ছিল ৯ দশমিক ২৪ শতাংশ। বেশ কয়েকটি ব্যাংকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তারা অনেক বেশি সুদে আমানত সংগ্রহ করছে। সবচেয়ে বেশি সুদ দিচ্ছে দীর্ঘমেয়াদি সঞ্চয়ী হিসাবে। এমনকি ৫ বছরে দ্বিগুণ মুনাফাও অফার করছে কোনো কোনো ব্যাংক। এতে আমানতকারীরাও আবার ব্যাংকমুখী হচ্ছেন। মনোয়ারা বেগম নামে একজন আমানতকারী জানান, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকে তার একটি সঞ্চয়ী হিসাব কিছুদিন আগেই মেয়াদ পূর্ণ হয়েছে। তখন ব্যাংক থেকে তাকে সেই আমানত ৫ বছরে দ্বিগুণ হারে মুনাফা দেওয়ার শর্তে আবার ব্যাংকে রাখার অনুরোধ জানানো হয়েছে। তিনি হাসিমুখেই সেই সুযোগটি কাজে লাগিয়েছেন। এই বিষয়ে অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) সাবেক চেয়ারম্যান ও মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহবুবুর রহমান কালবেলাকে বলেন, ‘বর্তমানে কিছু ব্যাংকে এমনিতেই তারল্য সংকট চলছে। তার ওপর সরকার বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে অনেক বেশি ঋণ নিচ্ছে। সরকারি বিভিন্ন ট্রেজারি বিল ও বন্ডে ৯১ দিনে সুদ দিচ্ছে ১১ দশমিক ৩ এবং ১০০ দিনমেয়াদি বিল-বন্ডে দিচ্ছে ১১ দশমিক ৬ শতাংশ। ফলে ব্যাংকগুলোর আমানতের সুদহার না বাড়িয়ে কোনো উপায় নেই। আগামীদিনে এই হার আরও অনেক বাড়বে জানিয়ে তিনি বলেন, ট্রেজারি বিলের সঙ্গে সঙ্গে ঋণের সুদহারও বাড়ছে। ফলে আমানতের সুদহারও আরও বাড়বে।’ অপর একটি বেসরকারি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, ‘বর্তমানে আমানতের সর্বোচ্চ সুদের হার ১০ শতাংশের ওপরে রয়েছে। আমানতের সুদহার সঞ্চয়ের পরিমাণ ও তা জমা রাখার মেয়াদের ওপর নির্ভর করে। টাকার পরিমাণ যত বেশি, সুদের হারও তত। আমানতকারীরা যদি দীর্ঘ সময়ের জন্য টাকা জমা রাখতে রাজি হন, তবে তাদের বেশি পরিমাণ সুদ দেওয়া হয়।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমানতের সুদহার বাড়ায় বাজারে টাকার জোগান বাড়বে। সঞ্চয়কারীরা ভালো সুবিধা পেলে আবার ব্যাংকে ফিরে আসবেন। ফলে ব্যাংকিং ব্যবস্থার বাইরের সঞ্চয়ও কমে আসবে।’ বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যানুযায়ী, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে এবারও নীতি সুদহার কিছুটা বাড়িয়ে সংকোচনমুখী মুদ্রানীতি ঘোষণা করেছে। ঘোষণা অনুযায়ী, নীতি সুদহার দাঁড়িয়েছে ৮ শতাংশ। এর আগেও দফায় দফায় বাড়ানো হয়েছে নীতি সুদহার। নীতি সুদহার বাড়ায় এক মাসের ব্যবধানে ব্যাংক ঋণের সুদহার বাড়ল ৫৪ বেসিস পয়েন্ট, যা গত সাত মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ। বাংলাদেশ ব্যাংক বলেছে, ফেব্রুয়ারি মাসে নতুন ঋণ বিতরণে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে ‘স্মার্ট’ (সিক্স মান্থস মুভিং এভারেজ রেট অব ট্রেজারি বিল) সুদহার ধরতে হবে ৮ দশমিক ৬৮ শতাংশ। তাতে গ্রাহক পর্যায়ে সুদহার দাঁড়াবে প্রায় সাড়ে ১২ শতাংশ, আগের মাসে যা ছিল ১১ দশমিক ৮৯ শতাংশ। এর আগে গত ডিসেম্বর মাসে ৪২ বেসিস পয়েন্ট বাড়িয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক ‘স্মার্ট’ সুদহার ঠিক করে দিয়েছিল ৮ দশমিক ১৪ শতাংশ। সেই হিসাবে এবার সুদ হার ৫৪ বেসিস পয়েন্ট বাড়ল। ৮ দশমিক ৬৮ শতাংশ স্মার্ট সুদহারের সঙ্গে সর্বোচ্চ ৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ সুদ যোগ করে গ্রাহককে ঋণ দিতে পারবে ব্যাংক। তাতে গ্রাহক পর্যায়ে ঋণের সুদহার দাঁড়াবে সর্বোচ্চ ১২ দশমিক ৪৩ শতাংশে।

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর