• বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ৩ ১৪৩১

  • || ১০ মুহররম ১৪৪৬

দগ্ধ টুম্পাও চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন

দৈনিক জামালপুর

প্রকাশিত: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

নারায়ণগঞ্জে আগুনে দগ্ধ র‌্যাব সদস্য অভিজিতের পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন দগ্ধ টুম্পা।
সোমবার সকালের দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র( আই সি ইউ ) তে মারা যান তিনি। গত বৃহস্পতিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) বিকেল পৌনে ৫টার দিকে অভিজিত চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

গত বৃহস্পতিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) ভোর আনুমানিক ৪টার দিকে এ আগুনের ঘটনাটি  ঘটে। পরে স্থানীয় ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে তাদের সকালে শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটে নিয়ে এলে চিকিৎসক তাদের ভর্তি দেন।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক চিকিৎসক তরিকুল ইসলাম জানান। গত (১৪ সেপ্টেম্বর) নারায়ণগঞ্জ থেকে একজন পুরুষ ও একজন নারী দগ্ধ অবস্থায় আমার এখানে এসেছে। অভিজিত নামে একজন ঐদিন বিকেলে মারা যান। তার শরীরে ৯০ শতাংশ দগ্ধ ছিল। টুম্পা রানী নামে এক নারী সকালের দিকে মারা যান তার শরীরে ৭০ শতাংশ ছিল।

নিহত টুম্পার আত্মীয় বল্লভ দাস জানান, নিতাইগঞ্জের লাল বিল্ডিংয়ের এই বাড়ির ৩য় তলায় রাতে ফ্ল্যাটের একরুমে টুম্পার দুই ছেলেসহ অভিজিত ঘুমিয়ে ছিলেন। ভোরে হঠাৎ চিৎকার শুনে ঘুম ভেঙে গেলে তারা দেখেন, টুম্পা রানীর রুমে আগুন জ্বলছে। টুম্পা ও অভিজিতের শরীরেও আগুন। তখন তারা বাথরুম থেকে পানি এনে তাদের দুজনের শরীরে ঢালেন। এরপর ঘরের আসবাবপত্র আগুন লেগে যায়। দগ্ধদের সঙ্গে সঙ্গে নারায়ণগঞ্জের (ভিক্টোরিয়া) জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখান থেকে তাদের ঢাকায় নিয়ে আসা হয়।

তিনি আরো বলেন, র‌্যাব সদস্য অভিজিতের পরিবার ও টুম্পার পরিবার আগে পাশপাশি ফ্ল্যাটে ভাড়া থাকতো। সেই সুবাদে তাদের সঙ্গে একটি পারিবারিক সম্পর্ক গড়ে উঠে। বুধবার দিনগত মধ্য রাতে অভিজিৎ এই বাসায় এসেছিলেন। হঠাৎ ভোরের দিকে কিভাবে আগুন লাগে সেটা আমরা বলতে পারছি না।

অভিজিৎ র‌্যাব-১১ এর সদস্য। তার বাড়ি জয়পুরহাট সদর উপজেলার জয় কৃষ্ণপুর গ্রামে।

দৈনিক জামালপুর
দৈনিক জামালপুর